মেইন ম্যেনু

অজ্ঞান করে ২০ বছরের নারীকে ধর্ষণ করলো ১৮ জন পুরুষ

পৃথিবীটা দিন দিন নৃশংসতার চরমে পৌঁছচ্ছে। একের পর এক নৃশংস ঘটনা ঘটেই চলেছে। হাজার পুলিশ, আইন, শাস্তি, ফাঁসি, জেল, জরিমানা করেও কোনও লাভ হচ্ছে না।

মানুষের রূপে ঘুরে বেড়ানো বিকৃত মস্তিষ্কের অমানুষরা তাদের জঘন্য ঘৃণ্য মানসিকতার পরিচয় দিচ্ছে রোজ রোজ। আর দিনের পর দিন সেই ঘৃণ্য মানসিকতার শিকার হচ্ছে নারীরা।

আবারও সেই নৃশংস ঘটনা দেখা গেল ভারতের গুরগাঁওয়ের খাদারপুর গ্রামে। ২০ বছরের একটি মেয়েকে ১৮ জন মিলে গণধর্ষণ করল!

পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, গতকাল ওই মেয়েটি বাড়িতে একা ছিলেন। পরিবারের বাকি সদস্যেরা কোনও কারণে বাড়ি ছিলেন না। সেই সুযোগে হঠাত্‌ই পাঁচিল টপকে বাড়ির মধ্যে ঢুকে পড়ে ৩ জন ব্যক্তি।

এরপরেই তাঁর মুখ রুমাল দিয়ে চেপে ধরে। রুমালে ক্লোরোফর্ম জাতীয় কোনও বস্তু থাকায় সঙ্গে সঙ্গে তিনি অজ্ঞান হয়ে যান। এরপর বাড়ি থেকে খানিকটা দুরে নিয়ে গিয়ে ১৮ জন মিলে তাঁকে ধর্ষণ করে বলে জানা গিয়েছে।

নিগৃহীতা ওই মহিলা জানিয়েছে যে ওই ১৮ জন ধর্ষক তাঁদের এলাকারই। অভিযুক্ত ১৮জন ধর্ষক অমিত, রাজেশ, বীরপাল, মনোজ, সন্দীপ, রাজবীর, লালু, প্রহ্লাদ, পবন, বলরাজ, আদেশ, সুনীল, রাকেশ, সানি, ধর্মেন্দ্র, সঞ্জয়, ফুলি এবং করণের নামে FIR করেছেন তিনি।