মেইন ম্যেনু

অত্যধিক তৃষ্ণার ৬টি কারণ ও প্রতিকারের উপায়

আপনি কি অনবরত তৃষ্ণা অনুভব করেন? তাহলে আপনার অবশ্যই জানা উচিৎ যে, শরীর থেকে অতিরিক্ত তরল বাহির হয়ে যাওয়া এবং শরীরের পানি নিঃশেষ হয়ে যায় বলেই আপনি অত্যন্ত তৃষ্ণার্ত অনুভব করেন। ঘন ঘন মূত্র ত্যাগ, বমি, ডায়রিয়া, ঘাম ইত্যাদি কারণে শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দেয়। সাধারণ কিছু রোগের কারণে তৃষ্ণা বৃদ্ধি পায়। আসুন জেনে নেই সেই কারণগুলো সম্পর্কে।

১। ডায়াবেটিস

যদি আপনার ব্লাড সুগার লেভেল অস্বাভাবিক হয় তাহলে আপনার কিডনি এই মাত্রাতিরিক্ত চিনির মোকাবিলা করতে পারেনা। ফলে চিনি মূত্রের মধ্যে প্রবেশ করে এবং শরীর থেকে প্রচুর পানি বাহির করে দেয়। এই কারণে অতিরিক্ত তৃষ্ণা পায়। সুতরাং এটা প্রমাণিত যে, অত্যধিক তৃষ্ণার্ততায় ভোগার একটি কারণ হল ডায়াবেটিস মেলাইটিস।

২। পানিশূন্যতা

পানিশূন্যতার কারণে শরীরে বিভিন্ন প্রকার অসুস্থতার সৃষ্টি হতে পারে যেমন- ফুড পয়জনিং, ডায়রিয়া, অত্যন্ত ক্লান্ত লাগা, জ্বর ও জ্বালাপোড়া হওয়া ইত্যাদি। যদি পানি নিঃশেষিত হওয়া শুরু করে তাহলে আপনি মানসিক চাপ, মুখ শুকিয়ে যাওয়া এবং অত্যধিক তৃষ্ণা অনুভব করবেন। যদি আপনার শরীর অত্যন্ত পানিশূন্য হয়ে পরে তাহলে আপনার বমি বমি ভাব এবং বমির সমস্যায় ভুগবেন। এর ফলে আপনার জীবন সংকটের মধ্যে পড়তে পারে।

৩। দুশ্চিন্তা

দুশ্চিন্তার জন্য অত্যধিক তৃষ্ণা পায় এটা কি সম্ভব? হ্যাঁ, এটা সম্ভব। আপনি যখন কোন বিষয় নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন তখন আপনার মুখ শুকিয়ে যায় এবং আপনি তৃষ্ণা অনুভব করেন। উদ্বিগ্নতা আপনার মুখ থেকে পানি সরিয়ে নেয় এবং শরীরের অন্যান্য অংশে প্রেরণ করে। দুশ্চিন্তা আপনার পাকস্থলীতে এসিড বৃদ্ধি করতে পারে যা মুখের লালা কমিয়ে দিতে পারে। আপনি দুশ্চিন্তায় ভুগলে অসুস্থও হয়ে যেতে পারেন।

৪। অত্যধিক ঘাম

ঘাম হওয়াটাই স্বাভাবিক কিন্তু অত্যধিক ঘাম বিশেষ করে চরম গরম এবং আর্দ্র অবস্থাও তৃষ্ণার কারণ। কৌতূহলউদ্দীপক বিষয় হচ্ছে, গরম আবহাওয়ায় কাজের সময় খনি শ্রমিকদের ১০ লিটারের বেশি পানি পান করা প্রয়োজন হয়।

৫। সাইকোজেনিক পলিডিপ্সিয়া

আপনি হয়তো শুনে থাকবেন যে, কিছু মানুষ এতো বেশি পানি পান করে যে তা তাঁদের শরীরের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়ায়। আসলে সাইকোজেনিক পলিডিপ্সিয়া এমন একটি মানসিক অবস্থা যার কারণে যিনি এই সমস্যায় ভুগছেন তিনি অনেক বেশি পানি পান করার ইচ্ছা থেকে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননা ফলে তাঁরা কখনো কখনো ২.৫ গ্যালন এর বেশি পানি পান করে। এই প্রকার অনিবারণীয় তৃষ্ণা সাধারণত মানসিক সমস্যার সাথে সম্পর্কিত যা বিষণ্ণতা অথবা বাইপোলার ডিজঅর্ডার হওয়ার প্রবনতা বাড়ায়।

৬। পরিপাক

যদি আপনি অনেক বেশি তৈলাক্ত ও মশলাযুক্ত খাবার খান তাহলে আপনার তৃষ্ণা বেড়ে যেতে পারে। আমাদের শরীরের তরল পদার্থগুলো খাদ্য পরিপাক প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে। অনেক বেশি খাওয়ার পরে পানি পান করা ঠিক নয়। কারণ এর ফলে খাদ্য সম্পৃক্ত হয় এবং অন্ত্রে চর্বি আকারে জমা হয়।

কেনো কিছু মানুষের বেশি তৃষ্ণা পায় সেই সম্পর্কে আমরা জানলাম। তাই প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করা প্রয়োজন যাতে আপনার শরীর পানিশূন্য না হয়।

অত্যধিক তৃষ্ণার সমস্যা থেকে মুক্তির উপায় :

· গোল মরিচের গুঁড়া- ৪ কাপ সিদ্ধ পানির মধ্যে ১ টেবিল চামচ গোল মরিচের গুঁড়া ভালো ভাবে মিশিয়ে ঠান্ডা করুন। যখনই তৃষ্ণা অনুভব করবেন তখনি এই মিশ্রণটি কয়েক চুমুক পান করুন।

· মৌরি বীজ গুঁড়া- ৫ টেবিল চামচ মৌরি বীজ গুঁড়ার সাথে ২৫০মিলিলিটার পানি মিশ্রিত করে ১ ঘন্টা রেখে ছেঁকে নিন। কয়েক চুমুক করে পান করুন। ম্যালেরিয়ার কারণে যে তৃষ্ণার সৃষ্টি হয় তাঁর জন্য এটা কার্যকরী।

· বৈচিঁ গুঁড়া- ৩ টেবিল চামুচ বৈচিঁ গুঁড়ার সাথে ২ টেবিল চামচ মধু ভালো ভাবে মিশাতে হবে। দিনে তিনবার এটি গ্রহণ করুন।

আমরা দেখলাম যে বিভিন্ন কারণে তৃষ্ণার সমস্যা হতে পারে। এছাড়াও আপনি হয়তো পর্যাপ্ত পানি পান করছেন না, সারাদিনে হয়তো কয়েক কাপ চা বা কফি পান করছেন অথবা মশলাদার খাবার খাচ্ছেন অথবা ব্যায়ামের পরে রিহাইড্রেশন করছেন না অথবা আপনি হয়তো কোন স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগছেন। তাই কারণ যাই হোক না কেন একজন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলে নিশ্চিত হয়ে নিন।