মেইন ম্যেনু

অবশেষষে বঙ্গবন্ধু হলের শুভ উদ্বোধন; শিক্ষার্থীদের উল্লাস

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোরি) ছাত্রদের আবাসনের জন্য নির্মিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল উদ্বোধন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ কে এম নূর-উন-নবী আজ বুধবার বেলা ১১টায় আনুষ্ঠানিকভাবে ফিতা কেটে হলটির উদ্বোধন করেন।

৬ তলা বিশিষ্ট হলটি নির্মাণে ৬ কোটি ২৩ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়েছে। হলটিতে ৭০টি কক্ষ রয়েছে।২৪০ টি আসনের বিপরীতে ৩৭০ জন ছাত্রকে আবাসিক সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। এটিই বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের জন্য প্রথম আবাসিক হল।

আবাসিক হল চালু করায় উল্লাস প্রকাশ করেছে ছাত্ররা। আবেগে উদ্বেলিত হয়ে পড়েন উপাচার্য নিজেও। উদ্বোধনী বক্তৃতায় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে উপাচার্য বলেন ‘শুধু থাকার জন্য নয় বরং নিজেদেরকে যোগ্য হিসেবে গড়ে তোলার উপযুক্ত পরিবেশে লেখাপড়া ও গবেষণার জন্য এই আবাসিক হল। সুতরাং যে কোন মূল্যেই হোক তোমাদেরকে আবাসিক হলে শান্তিপূর্ণ ও লেখাপড়ার উত্তম পরিবেশ বজায় রাখতে হবে। পারস্পরিক সম্পৃতি ও ভ্রাতৃত্বপূর্ণভাবে বিভিন্ন বিভাগের ছাত্রদের সকলেই সহবস্থান করতে হবে।’

চলতি মাসেই ছাত্রদের জন্য নির্মিত শহীদ মুখতার ইলাহী হলটিও চালু করা হবে বলে উপাচার্য ঘোষণা করেন। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ক্যাফেটরিয়া ও কেন্দ্রীয় মসজিদটিও চালু করা হবে বলে তিনি তাঁর বক্তৃতায় উল্লেখ করেন।

হলের প্রভোস্ট ড. কমলেশ চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. নাজমুল হক, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মতিউর রহমান, শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের প্রভোস্ট ড. আবু ছালেহ মোহাম্মদ ওয়াদুদুর রহমান (তুহিন ওয়াদুদ), শহীদ মূখতার ইলাহী হলের প্রভোস্ট (চলতি দায়িত্ব) মোঃ আমির শরীফ ও প্রক্টর (চলতি দায়িত্ব) মোঃ শাহিনুর রহমান। পরে বিশেষ দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। এর আগে উপাচার্য জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে পতাকা উত্তোলন করেন। এসময় বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালে হলটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। পরে হলটির নাম ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল’ চূড়ান্তÍ করে ২০১১ সালের ১৭ মার্চ নামফলক উম্মোচন করা হয়।

এদিকে হল চালুর প্রথমদিনেই আবাসিক সুবিধার জন্য মনোনীত ছাত্ররা হলে উঠতে শুরু করেছে। হল প্রশাসনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের মাঝে কর্মতৎপরতা ও প্রাণচাঞ্চল্যতা লক্ষ করা গেছে।