মেইন ম্যেনু

অবশেষে দেশে ফিরছে ১৫৯ বাংলাদেশি

সমুদ্রপথে ট্রলারে করে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় মিয়ানমারে উদ্ধার হওয়া আরো ১৫৯ জন বাংলাদেশিকে আজ সোমবার দেশে ফিরিয়ে আনা হবে।

সকাল সাড়ে ১০টায় বাংলাদেশ-মিয়ানমারের ঘুমধুম সীমান্তের জিরো পয়েন্ট এলাকায় নির্ধারিত পতাকা বৈঠক শুরু হয়। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ ( বিজিবি) ও মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপির) মধ্যে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে ১০ সদস্যের বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল অংশ নিচ্ছে। বৈঠক শেষে দুপুরে কক্সবাজারের ঘুমধুম সীমান্ত দিয়ে তাদের ফিরিয়ে আনা হবে।

এর আগে বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড় ‘কোমেন’-এর কারণে প্রথম দফায় ৩০ জুলাই এবং মিয়ানমারের বন্যার কারণে দ্বিতীয় দফায় ৫ আগস্ট ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া পেছানো হয়।

জানা গেছে, ১৫৯ জন অভিবাসীর মধ্যে নারায়ণগঞ্জের ১২ জন, কিশোরগঞ্জের ১৩ জন, চট্টগ্রামের ১৮ জন, ফরিদপুরের ১২ জন, হবিগঞ্জের ১৭ জন, নরসিংদীর ৮০ জন, নওগাঁর দুজন, নাটোরের একজন, শরীয়তপুরের তিনজন ও বরিশালের একজন রয়েছেন। তারা এখন মিয়ানমারের মংডু জেলার একটি আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান করছেন।

বিজিবি ও পুলিশ সূত্র জানায়, গত ২২ জুলাই মিয়ানমার থেকে তৃতীয় দফায় ১৫৫ জন অভিবাসীকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। এর আগে ১৯ জুন দ্বিতীয় দফায় ৩৭ জন ও ৮ জুন প্রথম দফায় ১৫০ জন অভিবাসীকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।