মেইন ম্যেনু

অভিযোগের শেষ নেই যাত্রীদের : সহজ ডটকমের এবার কঠিন হয়রানি

ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার ভোগান্তি এড়াতে অনলাইনে ঈদে বাড়ি যাওয়ার টিকিট কাটেন মুঈদ মুন্তাসির। সহজ ডটকমে নাবিল পরিবহনের ১৯ সেপ্টেম্বরের টিকিট কাটেন শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর)। নিজের বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে টাকাও পরিশোধ করেন। টিকিটের মূল্য ও অন্যান্য চার্জ বাবদ কাটা হয় ৭৫৪ টাকা। নিশ্চিন্তকরণ এসএমএসও পান ( পিন- ৫৫এফ৩০১ডিডি৭৩৯৫০)।

কিন্তু পরদিন সহজ ডটকম থেকে তাকে অন্য একটি এসএমএসের মাধ্যমে জানানো হয় তার টিকিট বাতিল করা হয়েছে। তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখেন তার ক্রয়কৃত টিকিটটি ‘বিক্রয়যোগ্য’ দেখাচ্ছ এবং পিন নম্বরটি অকার্যকর হয়ে গেছে।

এরপর তিনি তাদের গ্রাহক কেন্দ্রে ফোন দিয়ে নতুন হয়রানির কবলে পড়েন। প্রতিবার তাকে অপেক্ষা করতে বলে কিন্তু কোনো সাড়া দেয় না। এভাবে ফোনের ব্যালেন্স শেষ, কিন্তু কোনো সমাধান পান না। পরে মুঈদ সহজ ডটকমের ফেসবুক পেজে গিয়ে তার অভিযোগ জানিয়ে সমাধান চাইলেও কর্তৃপক্ষের সাড়া পাননি। মুঈদের অ্যাকাউন্ট থেকে যে টাকা কাটা হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায় বিকাশের ফিডব্যাক দেখে। বিশেষ অফার অনুসারে বিকাশের মাধ্যমে টিকিট কেনায় ১০ শতাংশ ক্যাশব্যাক হিসেবে ৭৫ টাকা ৪০ পয়সা ফেরত পেয়েছেন।

শুধু মুঈদ নন। অসংখ্য গ্রাহক এভাবে প্রতারণার শিকার হয়েছেন। তারা বলছেন, ভোগান্তি এড়াতে সহজ ডটকমের সাহায্য নিতে গিয়ে এখন আরো কঠিন হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে।

সহজ ডটকমের ফেসবুক পেজে গিয়ে এরকম প্রতারণার শিকার অনেকের মন্তব্য দেখা যায়। কেউ কেউ প্রতিকার পেলেও অধিকাংশই কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষার পরও কোনো সমাধান পাচ্ছেন না।

তৌফিকুর রহমানও শুক্রবার দুপুর ১২টা ৩৯ মিনিটের দিকে লিখেন, ‘আমি ক্যাশ অন ডেলিভারিতে ২টা টিকিট বুকিং করলাম আজ সকালে। বলা হলো কিছুক্ষণের মধ্যেই কনফারমেশন এসএমএস পাঠাবে। এখন ৩ ঘণ্টা পার হয়ে গেল কোন এসএমএস পেলাম না। প্লিজ হেল্প।’

সামিউল হক সোহান নামের একজন লিখেন, ‌‘ভাই আর কত অপেক্ষা করব আপনাদের কলের জন্য, প্লিজ আমাকে একটু জানাবেন।’

আরফাত হোসাইন নামে একজন নিজেকে সহজ ডটকমের পার্টনার উল্লেখ করে লিখেন, ‘আমি আপনাদের একজন পার্টনার, আমি ১১ তারিখ সকাল ৬টা থেকে চেষ্টা করে এখন পর্যন্ত কোন টিকিট কাটতে পারিনি। আইডি নং ০১৭১৭৭২৯১২৮। বাসের টিকিটের চাহিদা ঈদের সময়ই বেশি হয় এসময় যদি আমরা পার্টনাররাই টিকিট কাটতে না পারি তাহলে এত টাকা এবং ঝামেলা করে পার্টনার হয়ে কি লাভ? আমাদের যদি সুবিধাই দিতে না পারেন তাহলে শুধু শুধু আমাদের টাকা আটকিয়ে রাখার কোনো মানে হয় না। এই বিষয়ে সহজ ডট কম এর কর্তৃপক্ষের কাছে গ্রহনযোগ্য ব্যাখ্যা চাই।’

সুমন মিনহাজ শুক্রবার রাত ১০টা ২০ এ লিখেন, ‘আমি ১১ সেপ্টেম্বর সহজডটকম থেকে ঢাকা-রংপুর এস আর ট্রাভেল এর ২৪ সেপ্টেম্বর সকাল ৮ টার টিকিট বুকিং দেই। বিকাশ এর মাধ্যমে পেমেন্ট করার পর ওয়েব পেজ থেকে টিকিট চেক/প্রিন্ট করে দেখি- ২৪ সেপ্টেম্বর রাত ১১.৩০ এর টিকিট । ১৬৩৭৪ এ কমপ্লেইন করে এখন পর্যন্ত কোন ফিডব্যাক পাইনি… ।’

সাদাকাতুল বারি নামের একজন লিখেন, ‘আজ আনুমানিক সকাল সাড়ে টায় আগমনি রংপুর এর ২৩ সেপ্টেম্বররের দুপুর সাড়ে তিনটার একটা টিকিট কাটার চেষ্টা করি, আমার ডাচ বাংলা ডেবিট কার্ড এর একাউন্ট হতে ১৩৯৭ টাকা কেটে নেয়া হলেও আমি কোন এসএমএস কিংবা ই মেইল পাইনি। একই সাথে নাবিল পরিবহনে ঠাকুরগাও এর একই দিনের বিকাল ৫ টার একটি টিকিট ক্যাশ অন ডেলিভারি অপশনে বুকিং করলেও কোন ফোন পাইনি। আজ সারাদিনে ৫ (পাঁচ) বার আপনাদের কল সেন্টারেe এ ফোন করেও কোন সমাধান পেলাম না। প্রতি বারই বলা হচ্ছে আমরা আপনাকে ফোন দিচ্ছি, কিন্তু আমি এখনো সেই ফোনের অপেক্ষায় ! আমার কি এবার ঈদে বারি যাওয়া হবে না? আমার মোবাইল:…..।’

মাহমুদ চৌধুরী নামে একজর দুপুর আড়াইটায় একই রকম অভিযোগ করেন।

‘কাল্পনিক অরণ্য’ নামে ছদ্ম নামে একজন লিখেন, ‘আপনাদেরকে যখনই কল দেই, দেখি সব গুলো নম্বর ব্যস্ত, ওয়েটিং থাকতে থাকতে আমার মোবাইলের সম্পূর্ন ব্যালান্স শেষ।’

যাকির হোসাইন জিহাদ গত (শুক্রবার ) সোয়া ১১টার দিকে সহজডটকমের ফেসবুক পেজে লিখেন, ‘আমাকে টিকিট দেয়া হয়েছে। কিন্তু তাতে আপনাদের কারণে কিছু ভুল হয়েছে। আমি চাই আপনারা ঠিক করে দিবেন।’

এ বিষয়ে জানতে সহজ ডটকমের ওয়েবসাইটে গিয়ে কল সেন্টারের নম্বর ছাড়া যোগাযোগের অন্য কোনো উপায় পাওয়া যায়নি। ওয়েবসাইটে কোনো ঠিকানা দেয়া নেই । শুধু বলা হয়েছে সহজ ডটকম এর মালিক ও পরিচালনা কর্তৃপক্ষ সহজ লিমিডেট। তাদের ফেসবুক পেজে গিয়েও কোনো সাড়া মেলেনি।

ওয়েবের তথ্য অনুসারে, সহজ ডটকম বাস ছাড়াও লঞ্চের টিকিট ও হোটেল বুকিংএ সাহায্য করে। খুলনা, চট্টগ্রাম, সিলেট, রংপুরসহ দেশের প্রায় সব জায়গার বাসের টিকিট অনলাইনের কাটার সুযোগ দিচ্ছে কোম্পানিটি।