মেইন ম্যেনু

অর্থনৈতিক সক্ষমতায় এক ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রতিযোগিতা সক্ষমতা সূচকে গত বছরের তুলনায় এ বছর এক ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। ১৩৮টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ১০৬, যা আগের বছরে ছিল ১০৭।

বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বুধবার রাজধানীর সিরডাপ মিলেনায়তনে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)।

প্রতিবছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার উপর জরিপ চালিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম (ডব্লিউইএফ)। বাংলাদেশ সম্পর্কে এই প্রতিবেদন তৈরিতে সহযোগিতা করে সিপিডি।

প্রতিবেদনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে সিপিডির গবেষণা বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘বৈশ্বিক প্রতিযোগিতা সক্ষমতা সূচকে গত বছর যে সব দেশ শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করছিল এ বছরও সেই অবস্থানে রয়েছে সে দেশগুলো। এ সূচকের প্রথম অবস্থানে রয়েছে সুইজারল্যান্ড, দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে সিঙ্গাপুর এবং যুক্তরাষ্ট্র।’

তিনি জানান, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রতিযোগিতা সক্ষমতা সূচকে জার্মানিকে পেছনে ফেলে চতুর্থ স্থান দখল করেছে নেদারল্যান্ড। জার্মানি এখন পঞ্চম স্থানে আছে। এছাড়া ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৮ম, ৯ম এবং ১০ম অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে সুইডেন, যুক্তরাজ্য, জাপান, হংকং এবং ফিনল্যান্ড।

তিনি আরো জানান, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শ্রীলঙ্কা ছাড়া সবগুলো দেশেরই ইতিবাচক পরিবর্তন হয়েছে। এদের মধ্যে ভারতের অবস্থান সবচেয়ে ভালো। এ বছর ভারতের অবস্থান ৩৯, যা গতবছর ছিল ৫৫। এছাড়া শ্রীলঙ্কা, ভুটান, নেপাল ও পাকিস্তানের অবস্থান যথাক্রমে ৭১, ৯৭, ৯৮ ও ১২২তম।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিপিডির রিসার্চ ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, নির্বাহী পরিচালক প্রফেসর মোস্তাফিজুর রহমান, সিনিয়র সহকারী গবেষক কিশোর কুমার বাসেক, শিক্ষনবীশ গবেষক মনিকা তাসনিম।