মেইন ম্যেনু

অসাধারণ উপকার কমলালেবুর খোসায়

পছন্দের কমলালেবু খাওয়ার পর খোসাগুলো যায় ময়লার ঝুড়িতে। অথচ ফেলনা এই জিনিস কতটা পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ তা আমরা অনেকেই জানি না। আপেল বা অন্যান্য ফলের চেয়ে বরং কমলার খোসা একটু বেশিই গুণাগুণ সম্পন্ন। কমলালেবুর খোসায় রয়েছে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টি-ফাঙ্গাল উপাদান যা আমাদের বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা দূর করে। তাই আসুন জেনে নেয়া যাক কমলার খোসার উপকারি দিক গুলো সম্পর্কে।

কফ ও পিত্ত সমস্যা

কমলার খোসার তিতা রস কফের সমস্যা ও পিত্তের যে কোন ধরনের সমস্যা দূর করতে দারুণ উপকারী। পাতলা করে কমলার খোসা ছিলে চা বা অন্যান্য খাবারের সঙ্গে খেলে কফ ও পিত্তের সমস্যায় অসাধরণ উপকার পাবেন।

পেটের সমস্যা দূর

কমলালেবুর খোসা হজমের সমস্যা দূর করে কোষ্ঠকাঠিন্য সরিয়ে দেয়। কমলার খোসা গ্যাস, অম্বল এবং আম্লিক উদ্গিরণ অপসারণ করতে সাহায্য করে।

রুচি বাড়ায়

ক্ষুধা মন্দা এবং বমি বমি ভাব দূর করতে কমলার খোসার জুড়ি নেই। প্রতিদিন সকালে কমলার খোসার মিহি কুচি এক চা চামচ পরিমাণ মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খেয়ে নিন। যেকোনো ফ্রুট সালাদেও কমলার খোসা দিতে পারেন।

অ্যাজমা দূর

কমলার খোসা শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা ও অ্যাজমা উপশমে কাজে লাগে। এসব কষ্ট থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত পান করুন কমলার খোসায় তৈরি চা। কিংবা কমলার খোসা দিয়ে মোরব্বা তৈরি করেও খেতে পারেন। প্রতিদিন সকালে এই মোরব্বা চিবিয়ে খেলে উপকার পাবেন।

অ্যাসিডিটি দূর

কমলার খোসার তৈরি তেলে রয়েছে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল ও অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি। এসব উপাদান পেটের অ্যাসিডিটি দূরীকরণে সহায়তা করে। এছাড়া এই তেলে রয়েছে ডি-লিমোনেন যা অন্ত্রের স্বাভাবিক আন্দোলন বজায় রাখে ও লিভার ফাংশন স্বাভাবিক রাখে। তাই অ্যাসিডিটির সমস্যায় কমলার খোসায় তৈরি এসেনশিয়াল ওয়েল পানিতে দু ফোঁটা মিশিয়ে পান করুন।

ওজন কমাতে সহায়ক

গবেষণায় দেখা যায় কমলালেবুর খোসা কলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসেরাইড দ্রবীভূত পারে। ফলে যাদের উচ্চমাত্রায় কোলেস্টেরলের সমস্যা আছে এবং যারা ওজন কমাতে চান তাদের জন্য কমলার খোসা অনেক কার্যকরী। জ্যাম, জেলি বা মারমালেড এর সঙ্গে প্রতিদিন সকালে খেয়ে নিন তাজা কমলার খোসা।

ক্যানসার ও হাড়ের রোগ প্রতিরোধ

এছাড়া কমলার খোসায় একটি ফ্লেভোনয়েড রয়েছে যা ‘হেস্পিরিডিন’ নামে পরিচিত। এই উপাদান কোলন ক্যানসার এবং অস্টিওপরোসিস বা হাড়ক্ষয়ের বিরুদ্ধে কাজ করে।

অনিদ্রা দূর

কমলার খোসা গোসলের পানিতে ব্যবহার করলে এটি অনিদ্রা দূর করে। খোসা গুলো কাঁটাচামচ দিয়ে ভালো করে কেঁচে নিন। তারপর গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। পানির তাপমাত্রা কুসুম গরম অবস্থায় গোসল সেরে নিলেই হবে।



(পরের সংবাদ) »