মেইন ম্যেনু

অস্ত্র মামলায় হাইকোর্ট থেকে জামিন পেলেন রনি

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি নূরুল আজিম রণিকে অস্ত্র মামলায় তিন মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে দায়ের করা এক আবেদনের শুনানি শেষে মঙ্গলবার (২৮ জুন) বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও আমির হোসেনের অবকাশকালীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে জামিনের পক্ষে শুনানি করেন শ. ম. রেজাউল করিম।

এর আগে গত ১৯ জুন চট্টগ্রামের চতুর্থ বিচারিক হাকিম শহীদুল্লাহ কায়সারের আদালতে রণির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ।

অভিযোগপত্রে শুধু নূরুল আজিম রণিকে আসামি করা হয় এবং ২২ জনকে সাক্ষী করা হয়। ফলে হাইকোর্ট থেকে জামিন পেলেও তখন কারামুক্তি পাননি রনি।

গত ৭ মে বেলা সোয়া ১২টার দিকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন চলাকালে হাটহাজারী উপজেলার মির্জাপুর থেকে রনিকে আটক করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এরপর প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে দুই বছরের কারাদণ্ড দেন নির্বাচনে দায়িত্বরত জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হারুনুর রশিদ। এছাড়া অস্ত্র আইনে তার বিরুদ্ধে মামলাও দায়ের করা হয়।

২৫ মে দুই বছরের কারাদণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে করা আপিল মামলায় রণিকে জামিন দেন চট্টগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ আদালত। তবে অস্ত্র মামলায় জামিন নামঞ্জুর করেন।

এরপর রনির পক্ষে হাইকোর্টে জামিনের আবেদন জানানো হলে গত ১৩ জুন ছয় মাসের জন্য জামিন দেন আদালত। তবে জামিন আদেশ চট্টগ্রাম কারাগারে এসে পৌঁছার আগেই অস্ত্র মামলায় রনির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ।

গত ৭ মে আটকের সময় রনির কাছে একটি নাইন এমএম পিস্তল, ১৫ রাউন্ড গুলি ও ২৬ হাজার টাকা পাওয়া যায় বলে গণমাধ্যমে তথ্য দিয়েছিল বিজিবি। এসময় রনিসহ নয়জনকে আটক করা হলেও অস্ত্র মামলায় শুধু রনিকেই আসামি করে পুলিশ।