মেইন ম্যেনু

অ্যানেস্থেসিস্ট ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সংকট দূর করার উদ্যোগ

দেশে অ্যানেস্থেশিস্ট ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শূন্যতা পূরণে উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার।

সোমবার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও চিকিৎসা সেবার মানোন্নয়ন সম্পর্কিত এক সভায় সরকারি এই উদ্যোগের কথা জানানো হয়। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এতে সভাপতিত্ব করেন।

সূত্র জানায়, বৈঠকে সরকারি হাসপাতালে অপারেশন নির্বিঘ্ন রাখতে অ্যানেস্থেশিস্ট সংকট দূর করা প্রয়োজন। এ বিষয়ে শিক্ষায় উদ্ধুদ্ধ করতে বিশেষ প্রণোদনার প্রবর্তন করার প্রস্তাব করা হয়। দেশের চাহিদার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সংখ্যা কীভাবে বাড়ানো যায়, তা নিয়েও বিশেষ উদ্যোগের কথা বলা হয়।

বৈঠকে অ্যানেস্থেশিস্ট পেশায় উৎসাহ দিতে প্রবীণ চিকিৎসকদের এবং মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের জন্য প্রণোদনার ব্যবস্থা করার জন্য সভায় সুপারিশ করা হয়।

এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার হাসপাতালগুলোতে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করছে, চিকিৎসক সঙ্কট দূর করেছে। ফলে জনগণ এখন সহজে স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে। কিন্তু প্রয়োজনীয় সংখ্যক অ্যানেস্থেসিস্ট না থাকায় জটিল অপারেশনে বিঘ্ন ঘটার বিষয়টি মোটেও কাম্য নয়। তাই অ্যানেস্থেসিস্ট পদ সংখ্যা বাড়ানোসহ পদায়নের জন্য দ্রুত উদ্যোগ নেওয়া হবে।

বৈঠকে রোগীদের গ্রাম থেকে রাজধানীয় বিশেষায়িত হাসপাতাল পর্যায় পর্যন্ত চিকিৎসা নেওয়ার জন্য রেফারেল ব্যবস্থা চালু এবং দেশের সরকারি ও বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্সগুলো পরিচালনার জন্য একটি নির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়নের বিষয়ে আলোচনা হয়।

সভায় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য সচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মো. নুরুল হক, বিএমএর সভাপতি অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসান, মহাসচিব অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সালান, ডা. রশিদ-ই-মাহবুব, বিভিন্ন সরকারি মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ, বাংলাদেশ অ্যানেসথেসিওলজি সোসাইটি, বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর এবং বিএমডিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।