মেইন ম্যেনু

অ্যাপসের মাধ্যমে অভিযোগ জানাতে পারবেন নগরবাসী

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হক বলেছেন, নগরবাসী যাতে সহজে তাদের অভিযোগ জানাতে পারেন, বিভিন্ন বিষয়ে সহায়তা চাইতে পারেন, এ জন্য অ্যাপস তৈরি করা হচ্ছে। যার মাধ্যমে খুব সহজেই নগরবাসী তাদের কথা সিটি কর্পোরেশনকে জানাতে পারবেন। অর্থাৎ কারো বাড়ির সামনে ময়লা জমে থাকলে তিনি ওই অ্যাপসের মাধ্যমে সিটি কর্পোরেশনকে জানিয়ে দিতে পারবেন। পরবর্তী সময়ে সে অনুযায়ী কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা গিয়ে ময়লা অপসারণ করে নিয়ে আসবেন।

শনিবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে অনলাইন সংবাদ মাধ্যম ও এফএম রেডিও’র সম্পাদক, নির্বাহী সম্পাদক, বার্তা প্রধান ও সাংবাদিকদের সঙ্গে মত বিনিময়কালে তিনি এ তথ্য জানান।

রাজধানীবাসীর সুবিধার জন্য যে সব কাজ বাস্তবায়ন করা হয়েছে এবং যে সব উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়ন করার পরিকল্পনা রয়েছে, সভায় সেই সব বিষয়ে আলোচনা করেন মেয়র আনিসুল হক। তিনি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন সবুজ ও নিরাপদ ঢাকা গড়তে সম্পাদকদের সহযোগিতা কামনা করেন। সম্পাদকরাও ও বার্তা প্রধানরাও ঢাকাবাসীর মঙ্গলের জন্য সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

মতবিনিময় সভায় ঢাকা উত্তরের এই মেয়র বলেন, ‘আগামী মে মাসের মধ্যে উত্তর ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের ২৩০ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশে ২ হাজার বর্জ্যপাত্র এবং বাজারের কাছে ১ হাজার বর্জ্যপাত্র বসানো হবে। একশ’র বেশি পাবলিক টয়লেট করা হচ্ছে। আগামী ডিসেম্বরে কাজ শেষ হবে।’

আনিসুল হক বলেন, ‘এ পর্যন্ত বিভিন্ন বাড়ি ও কমার্শিয়াল ভবন থেকে ছোট-বড় ২০ হাজার বিলবোর্ড অপসরণ করা হয়েছে। ফুটপাত-রাস্তা দখলদারদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট অব্যাহত রয়েছে। যাতায়াত সুবিধা নিশ্চিত করতে ২০১৭ সালের মার্চের মধ্যে ৩ হাজার বাস চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে এক হাজার এসি বাস। তেজগাঁও, মহাখালী, কারওয়ানবাজার, গাবতলী, শ্যামলী, কল্যাণপুর, আব্দুল্লাহপুর, মোহাম্মদপুর, পল্লবী, জাপান সিটি গার্ডেন এলাকায় অবৈধ পার্কিং উচ্ছেদ করা হয়েছে।’

আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে সড়কের বিভিন্ন স্থানে আড়াই হাজার সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে। এর মধ্যে এক হাজার বসানো হয়েছে। বাকি দেড় হাজার বসানোর কাজ চলছে। এ ছাড়া ঢাকার উন্নয়নের জন্য আরো বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, যা সকলের সহযোগিতায় পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে।