মেইন ম্যেনু

অ্যালিয়েন খুঁজতে নাসার ল্যাপটপ

পৃথিবীর বাইরের অন্যান্য গ্রহের অর্থাৎ ভিনগ্রহের প্রাণীদের বলা হয়ে থাকে, অ্যালিয়েন। তবে ভীনগ্রহে আসলেই কোনো প্রাণের অস্তিত্ব রয়েছে কিনা, তা নিয়ে তর্ক বিতর্ক রয়েছে।

নানা সময়ে অনেকেই অ্যালিয়েনের দেখা বা ভিনগ্রহের যান পৃথিবীতে দেখতে পাওয়ার কথা জানালেও, এখন পর্যন্ত কেউই সেই দাবীর পক্ষে জোড়ালো প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেনি। ফলে ভিনগ্রহে আসলেই কোনো প্রাণের অস্তিত্ব রয়েছে কিনা, সে নিয়ে এখন পর্যন্ত সংশয় রয়েছে।

তারপরও বিজ্ঞানীরা এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে হাল ছাড়তে নারাজ। বহু বছর ধরেই মহাকাশে বিভিন্ন গ্রহে প্রাণের খোঁজে অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। তারই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার বিজ্ঞানীরা ভিনগ্রহে প্রাণের সন্ধানের নিশ্চিত তথ্য সংগ্রহ করতে তৈরি করেছে বিশেষ ধরনের একটি যন্ত্র।

ভিনগ্রহে প্রাণের তথ্য সংগ্রহের জন্য নাসার নতুন এই যন্ত্রটির নাম দেয়া হয়েছে ‘কেমিক্যাল ল্যাপটপ’। তবে আকার আকৃতিতে এটি ছোটখাট একটি গবেষণাগার।

ফ্যাটি অ্যাসিড ও অ্যামাইনো অ্যাসিড, প্রোটিনের মূল একক এই দুই উপাদান প্রাণের অন্যতম উপাদান। ফলে প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজতে এই দুইটি অ্যাসিডের অস্তিত্বই খুঁজে বের করবে নাসার কেমিক্যাল ল্যাপটপ।

nasa

নাসার বিজ্ঞানী জেসিকা ক্রেমার জানান, এই ছোট্ট কেমিক্যাল ল্যাপটপই হতে চলেছে মহাকাশে পাঠানো সবচেয়ে সংবেদনশীল যন্ত্র। এটি সহজেই অ্যামাইনো অ্যাসিড ও ফ্যাটি অ্যাসিড চিহ্নিত করতে পারবে।

প্রাণের সন্ধানে এই ল্যাপটপকে মঙ্গল গ্রহে পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে বিজ্ঞানীদের। তবে এই কেমিক্যাল ল্যাপটপ কঠিন কোনো পদার্থের ওপর পরীক্ষা চালাতে পারবে না। পরীক্ষার প্রয়োজন প্রয়োজন পড়বে তরল নমুনা। আর মঙ্গলের মতো শুষ্ক গ্রহে তা কতটা পাওয়া সম্ভব হবে, তাই এখন ভাবাচ্ছে বিজ্ঞানীদের।

তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া