মেইন ম্যেনু

আইএসের হামলায় কেঁপে উঠল সিরিয়া, নিহত ১৪০

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সরকারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রদেশ হোমস এবং রাজধানী দামেস্কে এবার আত্মঘাতী হামলা চালিয়েছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। তাদের মুহুর্মুহু হামলায় এই দুই প্রদেশে কমপক্ষে ১৪০ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে বহুসংখ্যক। নিহতদের অধিকাংশই সাধারণ নাগরিক।

রোববার পৃথক বেশ কয়েকটি হামলায় হতাহতের এ ঘটনা ঘটেছে বলে মনিটরিং গ্রুপ ও রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থার খবরে বলা হয়।

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সানা জানায়, দক্ষিণ দামেস্কের সাইয়েদা জয়নব উপশহরে একটি শিয়া উপাসনালয়ে আত্মঘাতী হামলায় নারী ও শিশুসহ কমপক্ষে ৮৩ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ১৭৮ জন। তবে সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস ৬৩ জন নিহতের কথা নিশ্চিত করেছে; একই সঙ্গে বিপুলসংখ্যক লোক আহত হয়েছে বলে তারা জানিয়েছে। আহতদের অধিকাংশের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এর আগে হোমস প্রদেশে গাড়িবোমা হামলায় নিহত হয়েছেন ৫৭ জন। আইএস উভয় হামলার দায় স্বীকার করেছে।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, কমপক্ষে ৬০টি দোকান ও রাস্তার পাশে থাকা গাড়ি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে।

আল জাজিরার খবরে জানানো হয়, গত জানুয়ারিতে একই শিয়া উপাসনালয়ে আইএসের হামলায় ৭০ জন নিহত হয়। সাইয়েদা জয়নব উপশহরটি মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর দৌহিত্রের নামে নামকরণ করা হয়েছে। শিয়াদের বিশ্বাস, এখানেই জয়নবের সমাধি। শিয়া সম্প্রদায়ের লোকদের জন্য এ স্থানটি খুবই পবিত্র। এখানকার উপাসনালয়টি শিয়াদের জন্য সিরিয়ার অন্যতম বৃহৎ তীর্থক্ষেত্রও।

হামলার পর আইএসের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা আমাক জানিয়েছে, তাদের জিহাদিরা গাড়িবোমা ও বিস্ফোরক কোমরবন্ধনী পরে এ হামলা চালায়।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস মনিটরিং গ্রুপ জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় আলেপ্পোর উত্তরে রাশিয়ার বিমান হামলা ও সরকারি বাহিনীর সঙ্গে লড়াইয়ে কমপক্ষে ৫০ জন আইএস জঙ্গি নিহত হয়েছে।