মেইন ম্যেনু

আইএস জঙ্গিদের উপর কুর্দিদের পাল্টা হামলা

আইএস জঙ্গিদের হাত থেকে ইরাকের উত্তরাংশের ছোট শহর সিঞ্জার পুনর্দখলের জন্য কুর্দিশ সেনাবাহিনী যৌথ বিমানবাহিনী নিয়ে পাল্টা হামলা চালিয়েছে আইএস এর উপর। আইএস জঙ্গিরা খেলাফতের নামে প্রায় একবছরেরও বেশিদিন যাবত দখল করে আছে সিঞ্জার শহরটি। এটা পুনর্দখল করতে পারাটা আইএস এর খেলাফতকে ভেঙ্গে দেয়ার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করবে।

সিঞ্জার শহরের ভেতর দিয়ে যে রাস্তা আছে সেটা যুক্ত ইরাকের আরেক শহর মসুলে। সিঞ্জারে আইএস এর ঘাঁটি গাড়ায় মসুলের ১৫ লাখ মানুষের কাছে কোন নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি পৌঁছতে পারছে না। সেখানকার জিনিসপত্রের দাম ক্রমান্বয়ে বাড়ছে।

সমর বিশেষজ্ঞ লে. জেনারেল মার্ক হার্টলিং বলেছেন, শুধুমাত্র জেতার জন্য সিঞ্জার পুনরুদ্ধার করাটাই বড় ব্যাপার না বরং নৈতিক কারনেই সেখানে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য পৌঁছানো দরকার।

কুর্দিশ সিকিরুটি কাউন্সিল জানিয়েছেন, সেনাবাহিনীর প্রায় ৭ হাজার ৫০০ সৈন্য তিনদিক থেকে আক্রমণ করে শহরটির নিয়ন্ত্রণ ফিরে পেতে চাইছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরের মধ্যে সেনাবাহিনী সিঞ্জারের বেশ কিছু গ্রামের নিয়ন্ত্রণ হাতে নিয়ে নিয়েছে।

কুর্দিশ সেনাবাহিনী জানে যে এই পুনরুদ্ধার অভিযান সহজ হবে না। সম্প্রতি আইএস তাদের যোদ্ধাদের সংখ্যা বাড়িয়েছে। যুদ্ধ করার জন্য তারা প্রস্তুত। এই উদ্দেশে তারা আগে থেকেই অনেক ল্যান্ড মাইন এবং বুবি ট্র্যাপ পেতে রেখেছে কুর্দিশদের জন্য। সেনাবাহিনীর এক সূত্রে বলা হয় তাদের প্রায় ৬০০ সৈন্য ইতিমধ্যে সিঞ্জারের ভেতরে অবস্থান করছে এবং তাদের বেঁচে ফেরার সম্ভবনা কম।

এই যুদ্ধে কুর্দিশদের সাথে যুক্ত হয়েছে ইয়াজিদি যোদ্ধারা। কারণ গত এক বছর ধরে আইএস এর হাত থেকে বাঁচতে প্রায় ৫০ হাজার ইয়াজিদিকে সিঞ্জারের পাহাড় বেয়ে পালাতে হয়েছে। আরও প্রায় ৫ হাজার পুরুষ এবং বালককে আইএস গণহত্যা করেছে এই সময়ে। অল্প বয়স্ক মেয়েদেরকে করেছে দাস।