মেইন ম্যেনু

আইটেম গার্ল সাদিয়াকে কু-প্রস্তাব, মার খেলেন পরিচালক

প্রযোজক আকাশ ও রনির কু প্রস্তাব মেনে না নেওয়ায় ছবি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে আইটেম গার্লখ্যাত সাদিয়া আফরিনকে। ঘটনাটি নিয়ে দু’দিন ধরেই চলচ্চিত্র পাড়ায় চলছে শোর-গোল। এরই ধারাবাহিকতায় আজ দুপুরের দিকে বিএফডিসিতে মারধরের শিকার হলেন পরিচালক এমকে জামান।

জানা যায়, প্রযোজক আকাশ ও রনি তাদের নতুন ছবি ‘বিষাক্ত ইয়াবা’র জন্য চুক্তিবদ্ধ করে সাদিয়া আফরীনকে।ছবিটি পরিচালনা করার কথা ছিলো পরিচালক এমকে জামানের। কিন্তু শুটিং শুরু হওয়ার আগেই প্রযোজকদ্বয় সাদিয়া আফরীনকে কু-প্রস্তাব দিয়ে বসেন। সাদিয়া তাদের প্রস্তাব না মেনে নেওয়ায় ছবি থেকে বাদ দেওয়া হয় সাদিয়াকে। সাদিয়ার অভিযোগ প্রযোজক বরাবর হলেও আজ দুপুরে বিএফডিসিতে সহকারি পরিচালক নামে খ্যাত বিপ্লব শরীফ কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে পরিচালক এমকে জামানকে মারধর করেন।

জানা যায়, সাদিয়া আফরিনের অভিযোগের কারণে এমকে জামানকে ডাকা হয়েছিল পরিচালক সমিতিতে। কিন্তু পরিচালক সমিতিতে পৌঁছার আগেই এমকে জামানকে প্রহার করেন বিপ্লব শরীফ।

এ প্রসঙ্গে পরিচালক সমিতির মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘একজন নায়িকা আমাদের পরিচালকদের বিরুদ্ধে দুর্নাম রটিয়েছেন। নির্দোষ হওয়া সত্বেও কেন এমকে জামান তার প্রতিবাদ করেনি সেটি নিয়েই জামানের সঙ্গে বিপ্লব শরীফের সামান্য হাতাহাতি হয়েছে। তারা সামান্য বাক-বিতন্ডা করেছেন।’

অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে গুলজার বলেন, ‘যারা বাক-বিতন্ডা করেছেন তারা দুজনই কাজী হায়াতের শিষ্য। আমাদের কাছে এখনো কেউ কোনো অভিযোগ করেনি, অভিযোগ করলে আমরা ব্যবস্থা নিবো।’

কিন্তু বিএফডিসি’র মতো একটি জায়গায় এরকম বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনায় পরিচালক সমিতির নিজ উদ্যোগে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া উচিত কিনা জানতে চাইলে গুলজার বলেন, ‘ওরা দুজনই যেহেতু একই গুরুর শিষ্য সেহেতু আমাদের কাছে অভিযোগ না আসা পর্যন্ত আমরা কোনো উদ্যোগ নিচ্ছি না। আমরা এটাকে বড়-ভাই ছোটভাইয়ের ঝগড়া হিসেবেই দেখতে চাই।