মেইন ম্যেনু

আইসক্রিম ওয়ালার কাছ থেকে টাকা চুরির কথা স্বীকার করলেন অপু বিশ্বাস

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়িকা অপু বিশ্বাস। জীবনের একটা সময় ঈদ মানেই আনন্দ। শুধু এ বিষয়টি উপভোগ করতেন। কিন্তু সময়ের স্রোতে পাল্লা দিয়ে এখন অপুর ঈদে ভিন্ন মাত্রা যোগ হয়েছে। কারণ তিনি এখন বাংলা চলচ্চিত্রের নাম্বার ওয়ান নায়িকা। সেই সঙ্গে তার পিছু পিছু হাঁটছে তারকা খ্যাতি। যার কারণে এখনকার ঈদে মানে শুধু ঈদ নয়। বেড়েছে অনেক দায়িত্ব। তারপরও ঈদ নিয়ে রয়েছে যার অসংখ্য স্মৃতি। যার মধ্যে কখনো বলা হয়নি এমন একটি মজার স্মৃতি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

‘ঈদের দিন আমরা তিন বান্ধবী মিলে রিকশায় করে বগুড়া শহরে ঘুরছি। আমরা যেদিকটায় থাকতায় সেদিকটাকে মফস্বল শহর বলা যায় না। তবে জেলা শহর বলা যায়। এরপর ঘোরার এক পর্যায়ে গিয়ে আমরা তিন বান্ধবী দেখতে পেলাম রাস্তার পাশে একটি জায়গায় প্যান্ডেল টানিয়ে গান বাজানো হচ্ছে। এছাড়া বেশকিছু ছেলে আমারদের দেখে কমেন্ট করছে। যাই হোক, এ বিষয়টাতে মাথা না ঘামিয়ে আমরা সামনে গেলাম। কিছুদূর যেতেই দেখি একজন আইসক্রিমওয়ালা হাতে ঘণ্টি বাজিয়ে ‘এই আইসক্রিম’ বলে বিক্রি করছে। আমাদের রিকশাটি তখন তার গাড়ির সামনে গিয়ে থামল। আমি আইসক্রিমওয়ালাকে বললাম, ‘ভাই একটা আইসক্রিম দেন।’ তিনি তখন মাথা নিচু করে তার গাড়ির ভিতর থেকে আইসক্রিম তোলার জন্যে হাত দিলে আমি তখন তার পকেট থেকে টাকা বেশ কিছু টাকা নিয়ে গেলাম।’

হাসতে হাসতে তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ছিলাম তিন বান্ধবী যার কারণে একই কাজ তিনবার করলাম। এরপর তাকে ত্রিশ টাকা দিয়ে বিদায় হলাম। তারপর আড়ালে এসে দেখলাম আমার কাছে এখনও একশত সত্তর টাকা আছে তার মানে আইসক্রিমওয়ালার কাছ থেকে দুইশত টাকা চুরি করেছি। আবার তার টাকা দিয়ে তার কাছ থেকেই আইসক্রিম কিনেছি। যা এখনও মনে পড়লে অনেক হাসি পায়। কত দুষ্টই না ছিলাম এই ভেবে। আবার মনে মনে অনেক কষ্ট হয় এই ভেবে লোকটার কাছ থেকে এত টাকা একসঙ্গে না এনে কিছু টাকা ফেরত দিয়ে আসতে পারলেও পারতাম।’