মেইন ম্যেনু

আইসিইউ থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে খাদিজাকে

সিলেটে ছাত্রলীগ নেতার চাপাতির কোপে মারাত্মক জখম খাদিজা আক্তার নার্গিসকে আইসিইউ থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক ও তার পরিবার। খাদিজার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে স্কয়ার হাসপাতালের নিউরো সার্জন ডা. রেজাউস সাত্তার ও খাদিজার বড় ভাই শাহীন আহমেদ এ তথ্য জানান।

ডা. রেজাউস সাত্তার বলেন, ‘শনিবার বিকেলে খাদিজাকে আইসিইউ থেকে সরিয়ে এইচডিইউতে নেওয়া হয়েছে।’ একই প্রসঙ্গে খাদিজার বড় ভাই জানান, যেহেতু লাইফ সাপোর্ট আর দেওয়া লাগছে না। তাই তাকে আইসিইউ থেকে সরিয়ে এইচডিইউতে আনা হয়েছে।

‘খাদিজা মারা যাবে না ইনশাল্লাহ’ এমনটা জানিয়ে রেজাউস সাত্তার বলেন, ‘পাঁচ থেকে ছয় দিন আগে থেকেই খাদিজা ডান পাশ নাড়াচাড়া করতে পারছে। তবে বাম পাশ কবে থেকে স্বাভাবিক হবে তা আগামী তিন মাস পরে বলা যাবে।’

এদিকে খাদিজার গলায় নল লাগানো বিধায় সে কথা বলতে পারছে না জানিয়েছেন খাদিজার বড় ভাই শাহীন আহমেদ। খাদিজার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থার বিষয়ে তিনি জানান, আগামী সোমবার তার দুই হাতে অপারেশন করা হবে। এছাড়া তার বাম পাশ স্বাভাবিক করার জন্য ফিজিওথেরাপি দেওয়া হবে।

মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসা খাদিজার পরিবারের আশঙ্কা এখনো কাটেনি। তার বড় ভাই আরো বলেন, ‘খাদিজা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে পারবে কি না, সে বিষয়ে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।’

গত ৩ অক্টোবর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবি) ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলম সিলেট এমসি কলেজের পুকুর পাড়ে সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে।

ওই ঘটনার পর প্রথমে খাদিজাকে সিলেটে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গত ৪ অক্টোবর ভোরে ঢাকায় আনা হয়। ওই দিন দুপুরে স্কয়ার হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের পর চিকিৎসকরা তাকে ৭২ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখেন।