মেইন ম্যেনু

আগামী বছর ১.৩০ কোটি শিক্ষার্থী উপবৃত্তি পাবে

আগামী বছর থেকে এক কোটি ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তি প্রদান করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।

আজ রবিবার দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষ্যে আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে সারাদেশে ৭৫ লাখ শিক্ষার্থী উপবৃত্তি পাচ্ছে। আগামী বছর থেকে ৫২ লাখ বৃদ্ধি করা হচ্ছে। আমাগীতে কোন শিক্ষার্থী এই সুবিধা থেকে বাদ পড়বে না। সকলেই এ প্রকল্পের আওতায় আসবে।

নিরক্ষরতা দূরীকরণের জন্য উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো’র মাধ্যমে সরকার সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে ‘মৌলিক স্বাক্ষরতা প্রকল্প’ নামক একটি বৃহৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের ৬৪টি জেলায় ১৫-৪৫ বছর বয়সী ৪৫লক্ষ নিরক্ষরকে স্বাক্ষরতা প্রদান করা হবে।

এ কর্মসূচির সুষ্ঠু বাস্তবায়নের জন্য দেশের সকল পর্যায়ের সরকারি-বেসরকারি সংস্থা/ প্রতিষ্ঠান, সুশিল সমাজসহ সর্বস্তরের জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ও সর্বাত্মক সহযোগিতার জন্য আপনাদের মাধ্যমে আহ্বান জানান তিনি।।

মন্ত্রী বলেন, দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন এবং গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ অপরিহার্য। একবিংশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমাদের সরকার দেশের নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে স্বাক্ষর ও দক্ষতাভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদানের পাশাপাশি আধুনিক ও কর্মমুখী শিক্ষায় শিক্ষিত দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তুলতে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। এর ফলে শিক্ষাক্ষেত্রে ঝরে পড়ার হার ও বৈষম্য হ্রাস পেয়েছে। শিক্ষার গুণগতমান বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা দেশ থেকে নিরক্ষরতা দূর করতে বদ্ধপরিকর।

প্রযুক্তিনির্ভর এ বিশ্বে সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে সাক্ষরতার কোন বিকল্প নেই। বিশ্ব থেকে নিরক্ষরতা দূরীকরণের লক্ষ্যকে সামনে রেখে ১৯৬৫ সালের ১৭ নভেম্বর কর্তৃক ৮ সেপ্টেম্বর-কে আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

৮ সেপ্টেম্বর ঢাকায় ওসমানীস্মৃতি মিলনায়তনে আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

তিনি বলেন, জাতীয় শিক্ষানীতি ও জাতীয় কর্মপরিকল্পনায় সরকার দেশ থেকে নিরক্ষরতা দূরীকরণের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছে এবং এ প্রেক্ষিতে পরিকল্পনা ও ভিশন ২০২১-এ সরকার ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে বদ্ধপরিকর।

এমনকি বর্তমান সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত আয়ের দেশে পরিণত করার দৃঢ় প্রত্যয় ঘোষণা করেছে।