মেইন ম্যেনু

আগুনে সুন্দরবনের তেমন ক্ষতি হয়নি : বনমন্ত্রী

সুন্দরবনের বেশ কয়েকটি স্থানে প্রায় একই সময়ে ধরা আগুনে তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু।

আজ রোববার দুপুরে হেলিকপ্টারে সুন্দরবনের অগ্নিকাণ্ডের স্থানগুলো ঘুরে দেখার পর এ মন্তব্য করেন বনমন্ত্রী।

পরে শরণখোলা উপজেলা পরিষদ চত্বরে সুন্দরবনের আগুন রোধে বনজীবী, রাজনৈতিক নেতা ও স্থানীয় সুধীজনের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন বনমন্ত্রী।

বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, এই অগ্নিকাণ্ডে যেমনটি ক্ষতি হতে পারে বলে ধারণা করা হয়েছিল, তার কিছুই হয়নি। আসলে প্রচার বেশি পেয়েছে। সুন্দরবনের তেমন কোনো ক্ষতিই হয়নি।

অগ্নিকাণ্ড রোধে স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা এবং সুধীজনদের সৎ ইচ্ছা ও সহযোগিতা কামনা করেন মন্ত্রী।

এদিকে, সুন্দরবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চারজনকে আটক করেছে শরণখোলা থানা পুলিশ। আজ ভোর থেকে সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম মিয়া। তবে আটকদের মধ্যে এজাহারভুক্ত কোনো আসামি নেই বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এ নিয়ে চার দফা অগ্নিকাণ্ডের পর পুলিশ পাঁচজনকে আটক করল।

সুন্দরবনের তুলাতলায় চতুর্থ দফায় লাগা আগুন গতকাল শনিবার দুপুরে নিভিয়ে ফেলা হয়। তবে সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে পোড়া গন্ধ আর পোড়া গাছের সারি। আগুনের তাপে সুন্দরী, গেওয়া, গরান, বলাসহ গুল্মজাতীয় শত শত গাছ শুকিয়ে গেছে। অনেক গাছেরই নিচের অংশ পুড়ে গেছে।

সুন্দরবনের তিনটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মোট ২২ জনকে আসামি করে তিনটি মামলা করেছে বন বিভাগ। এ মামলার এজাহারে থাকা আসামিরা এখনো পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে।

সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের সহকারী বন সংরক্ষক মো. বেলায়েত হোসেন জানান, তুলাতলা এলাকায় লাগা আগুন গতকাল দুপুরে নিভে গেছে। এতে তুলাতলা এলাকার ১ দশমিক ২ কিলোমিটার পরিধিতে ১৫টি পকেটে প্রায় সাড়ে তিন একরের বনভূমি পুড়ে গেছে।

তবে অগ্নিনির্বাপণের কাজে নিয়োজিত স্থানীয় একাধিক সূত্র বলছে, পুড়ে যাওয়া বনভূমির পরিমাণ আনুমানিক ২০ থেকে ২৫ একর।