মেইন ম্যেনু

আজব শিশু, যার পেটের ভেতরের অংশ বাইরে

নাম ইথান সুগলো। বয়স তিন বছর। ঘানায় পরিবারের সঙ্গে থাকে এই ছোট শিশুটি। কিন্তু জন্মের পরেই এক্সোমফালোস রোগে আক্রান্ত এই শিশুটি। এক্সোমফালোস হলো এমন একটি রোগ যা হওয়ার ফলে দেহের কিছু অংশ যা ভেতরে থাকার কথা তা বাইরে বের হয়ে থাকে। ইথানের পেটের ভেতরের কিছু অংশ তেমনি বাইরে বের হয়ে এসেছে। আর এ অবস্থায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিটি মুহূর্ত কাটাতে হয় তাকে।

একবার গ্রীষ্মের ছুটিতে একজন ব্রিটিশ ডাক্তার ডেভিড উলিয়াম তার মেয়ের সঙ্গে ঘানায় ঘুরতে যান। সেখানে তার মেয়ে ঘানার একটি রেডিও চ্যানেলে প্রোগ্রাম করার জন্য আসে। সেখানে কাজ করতেন ইথানের বাবা। উইলিয়ামের সঙ্গে পরিচিত হয়ে তিনি তার ছেলের অবস্থা তাকে বলেন। সব কথা শোনার পর তিনি ইথানের বাবাকে আশ্বস্ত করেন যে তিনি তার ছেলের অস্ত্রোপচার করবে। এরপর তিনি ইথানকে দেখতে গেলে পুরো হতবাক হয়ে যান।

উইলিয়ামের ভাষ্যমতে, ‘আমি আমার কর্মজীবনে এমন ঘটনা আগে কখনো দেখিনি। তখন আমি না দেখেই তার বাবাকে আশ্বস্ত করেছিলাম। কিন্তু আদৌ তা সম্ভব হবে কিনা কিছুই বলা যাচ্ছে না।’ এদিকে এই অস্ত্রোপচার ব্যায়বহুল বলেও জানায় তিনি। সব মিলিয়ে ৫১ হাজার ডলারের মতো লাগতে পারে। কারণ ঘানাতে কিছু অত্যাধুনিক যন্ত্র না থাকায় বাইরে থেকে যন্ত্র এনে ঘানার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচার করাতে হবে।

ইথানের বাবা ছেলের চিকিৎসার জন্য ২১ হাজার ডলারের ব্যবস্থা করতে পারলেও বাকি টাকা যোগাড় তার পক্ষে সম্ভব ছিল না। এদিকে ইথানের অবস্থা দেখে বাকি টাকা দিয়ে সাহায্য করতে ইচ্ছে প্রকাশ করলেন উইলিয়াম। এরপর তাকে প্রশ্ন করা হলে, কেন তিনি তাকে সাহায্য করবেন এর উত্তরে তিনি বলেন, ‘ইথানের বাবা আমার কাছে অনেক দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তার ছেলে ঘর থেকে বের হতে পারে না। সবাই তাকে গর্ভবতী বলে উপহাস করে। এমনকি তার ফোলা পেট দেখে অনেকে তাতে খোঁচা দেয়। যা শুনে আমি খুবই ব্যথিত হই এবং তাকে সুস্থ করার আশ্বাস দেই।’

ইথান যখন সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরবে তখন সে আর দশজন ছেলের মতো স্বাভাবিকভাবে চলতে পারবে এবং স্কুলে যেতে পারবে। তখন তাকে নিয়ে কেউ আর উপহাস করবে না। আর ডাক্তার উইলিয়াম এই অসাধ্য কাজ সাধ্য করবেন বলে মনে করছেন ইথানের বাবা। এ সপ্তাহের পরেই তার অস্ত্রোপচার হওয়ার কথা রয়েছে।