মেইন ম্যেনু

আতঙ্কে পুরোহিতরা, ১৫ দিনে ১৬ জনকে হুমকি

খুন আতঙ্কে মন্দিরের সেবায়েত ও পুরোহিতরা। একের পর এক হুমকি দেয়া হচ্ছে তাদের। হুমকি আতঙ্কে তারা নিতান্ত প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। সব সময় একটি অজানা আতঙ্ক তাদের তারা করে ফিরেছে। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ছয় মাসে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৬ জন সোবয়েত ও পুরোহিতকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে ২ জনকে। গত ১৫ দিনে ১৬ পুরোহিতকে হুমকি দেয়া হয়েছে।

পঞ্চগড়, গোপালগঞ্জ, টাঙ্গাইল, ঝিনাইদহ, রংপুর, পিরোজপুর, নোয়াখালী, মৌলভীবাজার, বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ, মাগুরার শালিখা, ভোলা, পটুয়াখালি ও পাবনায় অবস্থানরত মঠের অধ্যক্ষ, সাধু, দরজি, সেবায়েত ও পুরোহিতদেরকে হুমকি দেয়া হয়। এ ছাড়া ইউএনও অফিস, থানা ভবন উড়িয়ে দেয়াও হুমকি দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

শেরপুরের নকলায় মসজিদ, ইউএনও অফিস, থানা ভবন ও দুই আওয়ামী লীগ নেতার বাসা গ্রেনেড ও বোমা মেরে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার রাত ৯টার দিকে নকলা উপজেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক অনিল কুমার রায়ের বাসায় আইএস ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের নামে ওই চিঠিটি আসে। এ ঘটনায় গতকাল ১৮ জুলাই রাত ১০টার দিকে নকলা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে।

রংপুর নগরীর কলেজ রোডে আনন্দময়ী সেবা আশ্রমের পুরোহিত বিজয় চক্রবর্তীকে হত্যার হুমকি দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনার পর নিজের নিরাপত্তা চেয়ে গতকাল দুপুরে তিনি কোতোয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। আশ্রমের সেবায়েত ঝর্ণা রানী জানান, সোমবার সকালে আশ্রমের দরজা খুলে মেঝেতে হলুদ খাম দেখতে পাই। বিষয়টি মুঠোফোনে পুরোহিতকে জানালে তিনি এসে খামটি খুলেন। তার ভিতরে সাদা কাগজে লেখা, ‘বিজেত পুরোহিত কুড়ি হাজার টাকা রাখিস। তা না হলে তোর সময় শেষ’।

পিরোজপুর শহরের কেন্দ্রীয় কালীমন্দির ও পালপাড়া দুর্গা-কালীমন্দিরের পুরোহিতকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। রবিবার রাতে ও গতকাল সকালে মন্দিরে হুমকি সংক্রান্ত চিঠি আসে। দুর্গা-কালীমন্দিরের সভাপতি নরেন্দ্র নাথ জানান, রাতে পুরোহিত রুহিদাস মন্দিরে ঢুকে চিঠি পড়ে থাকতে দেখেন। চিঠিতে তাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি সকালে জেলা প্রশাসককে জানানো হয়।

কেন্দ্রীয় কালীমন্দিরের পুরোহিত সলিল মুখার্জী জানান, সোমবার সকালে মন্দিরে এলে ভিতরে চিঠি দেখতে পাই। খুলে দেখি তাতে আমাকে জীবননাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে। সদর থানার ওসি জানান, বিষয়টি আমাদের নজরদারিতে আছে।

পটুয়াখালী : বাউফল পৌরসভার দেশবন্ধু বিশ্বকল্যাণ গীতাশ্রমের সেবায়েত পরিতোষ সাহাকে গতকাল হত্যার হুমকি দিয়েছে এক দুর্বৃত্ত। মন্দিরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বাউফল থানার ওসি জানান, ঘটনার সময় পরিতোষ মন্দিরে ধোয়ামোছার কাজ করছিলেন। এ সময় রেইন কোর্ট পরা এক যুবক তাকে ডেকে— খেয়েদেয়ে রেডি হও তোমার দিন শেষ বলেই স্থান ত্যাগ করে।

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে দুটি মন্দিরের পুরোহিতকে জবাই করে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। মন্দিরে ফেলে যাওয়া চিরকুটে এই হুমকির কথা উল্লেখ করা হয়। তবে চিরকুটটিতে প্রেরকের নাম পরিচয় উল্লেখ করা হয়নি। এ নিয়ে হিন্দুদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। অতিরিক্তি পুলিশ সুপার এ কে এম জহিরুল ইসলাম জানান, ব্যক্তিগত কোনো শত্রুতা-বিদ্বেষবশত বা সত্যিকার অর্থে কাউকে টার্গেট করে এ হুমকি দেওয়া হয়েছে কিনা বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এ ঘটনার পর ওই এলাকায় পুলিশের টহল জোরদার করেছে।

পটুয়াখালির বাউফল পৌর শহরের ৫ নং ওয়ার্ডের ফুলতলা বিশ্ব কল্যাণ গীতা আশ্রমের সেবায়েত পরিতোষ চন্দ্র সাহাকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। গত কাল ১৮ জুলাই হুমকি দেয়া হয়। তিনি ১৪ বছর ধরে এ মন্দিরে সেবায়েত হিসেবে নিয়োজিত রয়েছে।

ধর্মপ্রচার বন্ধ না করলে গুলি করে হত্যার হুমকি দিয়ে রাজধানীর বাসাবোর বৌদ্ধ মন্দিরের পুরোহিতকে মঙ্গলবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। ২৯ জুন এ হুমকি দেয়া হয়। এ ঘটনায় ওই পুরোহিত জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সবুজবাগ থানায় একটি জিডি করেছেন। জিডি নং-১৮১৫।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের মণিপুরী পল্লীর উত্তর বালীগাঁওস্থ শ্রী শ্রী রাধা গোপীনাথ জিউর মন্দিরের পুরোহিত পরিবারকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। ১১ জুলাই হুমকি দেয়া হয়। হাতের লেখা এক চিঠির মাধ্যমে তাদের ধর্ম ত্যাগ না করলে হত্যা করা হবে বলে উল্লেখ করা হয়। এ ঘটনায় মণিপুরী পল্লীতে আতংক দেখা দিয়েছে। নেয়া হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

ঝিনাইদহের একজন পুরোহিতকে খুনের পর আবার ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের রাধা গোপিনাথ মন্দিরের পুরোহিত সেবা নন্দ দাসকে মোবাইলে হত্যার হুমকি দিয়েছে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। হত্যার হুমকি দেবার পর থেকে মন্দির ছেড়ে পালিয়ে গেছেন ওই পুরোহিত।ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন মন্দিরে থাকা সেবক পূর্ণিমা বারই।

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ উপজেলায় শ্রীবাস চক্রবর্তী (৪৫) নামের এক পুরোহিতকে মোবাইল ফোনে আইএস পরিচয়ে হুমকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ১১ জুন হুমকি দেয়া হয়। হুমকির কথা উল্লেখ করে থানায় সাধারণ ডায়েরি-জিডি করেছেন পুরোহিত। এরপর তার নিরাপত্তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মোড়েলগঞ্জ থানার ওসি মো. রাশেদুল আলম। শ্রীবাস চক্রবর্তী বরিশালের মুলাদী উপজেলার মুলাদী গ্রামের শুনিল কুমার চক্রবর্তীর ছেলে। তিনি গত ছয় বছর ধরে মোরেলগঞ্জের শ্রী গুরু আশ্রমে পুরোহিতের দায়িত্ব পালন করছেন।

মাগুরার শালিখা উপজেলার কেন্দ্রীয় আড়পাড়া মন্দিরের পুরোহিত বরাবর একটি উড়ো চিঠিতে হুমকি দেয়া হয়েছে। ৩ জুলাই হুমকি দেয়া হয়। মন্দিরের সেবায়েত, যেকোনো সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিশেষত হিন্দুদের হুঁশিয়ার করে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে অজ্ঞাত প্রেরক এটি পাঠিয়েছে। স্থানীয় পোস্ট অফিসের নিকটবর্তী শালিখা আড়পাড়া বাজারের একটি দোকানে পিয়ন পোস্ট কার্ডটি দিয়ে যান।

শালিখা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বিমল কৃষ্ণ দাস বলেন, চিঠিটি আমরা হাতে পেয়ে শালিখা থানায় পৌঁছে দিয়েছি। এর পর শালিখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সঙ্গে বিভিন্ন পূজাম-পসহ পুরোহিতদের নিরাপত্তার বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করেছি। তবে চিঠির অনেক শব্দই অস্পষ্ট রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে শালিখা থানার ভারপ্রাপ্ত রবিউল ইসলাম জানান, আমরা একটি চিঠি হাতে পেয়েছি। পোস্ট কার্ডে লেখা চিঠিতে অক্ষরগুলো অস্পষ্ট। অনেক কিছু বোঝা যাচ্ছে না। আমার ধারণা কোনো জঙ্গিগোষ্ঠী নাশকতা সৃষ্টি করতে এটা করতে পারে। বিষয়টি এরই মধ্যে আমি মাগুরা পুলিশ সুপার মহোদয়কে অবহিত করেছি।

বরগুনা পৌর শহরের কড়ইতলা এলাকার সার্বজনীন কালিবাড়ি মন্দিরের পুরোহিত সঞ্জয় চক্রবর্তীকে হত্যার হুমকি দিয়ে চিঠি দিয়েছে কিলিং মিশন। ২ জুলাই সকাল ১০টার দিকে মন্দিরে প্রবেশ করলে একটি হাতে লেখা চিঠি পাওয়া যায়। এই চিঠিতে পুরোহিতকে হত্যার হুমকি দিয়ে বলা হয় কাউকে এ কথা জানালে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে হত্যা করা হবে। চিঠিতে নিজেদের ‘পুরোহিত হত্যা সংগঠন’ হিসেবে পরিচয় দিয়েছে জঙ্গিরা।

এ ঘটনায় কালিবাড়ি মন্দিরের সংশ্লিষ্ট সবার মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। বরগুনা থানার ওসি রিয়াজ হোসেন পিপিএম জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। ভোলা সদরের বাপ্পা ইউনিয়নের মহাপ্রভুর মন্দিরের পুরোহিত জগদানন্দ ব্রহ্মচারীকে চিঠির মাধ্যমে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৫ জুলাই মঙ্গলবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মন্দির কমিটির সদস্য নীহার কুমার মজুমদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সন্ধ্যায় মন্দিরের প্রণামী বাক্স খোলার পর একটি হাতে লেখা চিঠি পাওয়া যায়। এতে লেখা আছে, ‘সাবধান থেকে লাভ নেই। তোদেরকে হত্যা করা হবে। জবাই করে হত্যা করা হবে।’ এ মন্দিরে পূজা-অর্চনার কাজ করেন মন্দিরের পুরোহিত জগদানন্দ ব্রহ্মচারী।

৫ জুলাই সন্ধ্যায় ভোলা সদরের বাপ্তা ইউনিয়নের মহাপ্রভুর মন্দিরে চিঠি পাঠিয়ে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। মন্দির কমিটির সদস্য নীহার কুমার মজুমদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মন্দিরের প্রণামী বাক্স খোলার পর হাতে লেখা চিঠি পাওয়া যায়। এতে লেখা আছে, ‘সাবধান থেকে লাভ নেই। আপনাদের জবাই করে হত্যা করা হবে।’ এ মন্দিরে পূজা-অর্চনার কাজ করেন পুরোহিত জগদানন্দ ব্রহ্মচারী। হুমকির চিঠি পাওয়ার পর তিনি চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। ভোলা মডেল থানার ওসি মীর খায়রুল কবির বলেন, প্রতিটি মন্দিরে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ।