মেইন ম্যেনু

আত্মগোপন থেকে কারাগারে রফিকুল

নাশকতার ১৩ মামলায় জামিন আবেদন নাকচ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। সোমবার দুপুরে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিন চান তিনি।

বিকাল সাড়ে তিনটায় জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শুরু হয়ে শেষ হয় চারটার দিকে। আদালত জামিন আবেদন নাকচ করে দিয়ে রফিকুল ইসলাম মিয়াকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

রফিকুল ইসলাম মিয়া বছর দুয়েক ধরে আত্মগোপনে ছিলেন। ৭২টি মামলা মাথায় নিয়ে ফেরারি থাকা রফিকুল ইসলাম মিয়া সর্বশেষ প্রকাশ্যে এসেছিলেন ২০১৪ সালে। ওই বছরের ৫ জানুয়ারি থেকে লাগাতার কর্মসূচির পর আর তাকে দেখা যায়নি।সূত্রগুলো বলছে, রফিকুল ইসলাম মিয়া গ্রেপ্তারের ভয়েই রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নিচ্ছেন না।

তার বিরুদ্ধে যত মামলা রয়েছে, তা বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্য কোনো সদস্যের নামেই নেই। আর তাই রাজনৈতিক কৌশল অবলম্বন করেই তিনি গা ঢাকা দিয়ে আছেন।

রফিকুল ইসলামের এক ঘনিষ্ঠ সূত্রু জানায়, সর্বশেষ ৭ ও ৮ মে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে গোপনে সাক্ষাৎ করেছেন রফিকুল ইসলাম। এমনকি বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও অংশ নিয়েছিলেন তিনি।