মেইন ম্যেনু

আন্ডারওয়ার্ল্ড ছাড়ছেন দাউদ!

এক সময়ের মুম্বাই আন্ডারওয়ার্ল্ডের কথিত ‘দেবতা’ পলাতক গ্যাঙস্টার দাউদ ইব্রাহীম আগামী শনিবার তার ৬০তম জন্মদিনে আন্ডারওয়ার্ল্ড রাজত্ব থেকে অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দিতে পারেন। তার উত্তরসুরি নিয়োগ করবেন তারই আপন ভাই আনিস আহমেদকে।
দাউদ ইব্রাহীম বর্তমানে ভারত থেকে পালিয়ে পাকিস্তানের করাচিতে অবস্থান করছে। দেশটির নিরাপত্তারক্ষীরা তাকে সার্বক্ষণিক পাহারা দিয়ে রাখে বলে ভারতের গোয়েন্দারা জানিয়েছেন।

একটি সূত্র জানিয়েছে, দাউদের অন্যতম সহকারী ছোটা শাকিলকে এরই মধ্যে তার গ্যাঙের প্রধান নির্বাহী বা সিইও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ডি-কোম্পানির উত্তরাধিকারীর বিষয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি। ডি-কোম্পানির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মুম্বাইয়ের অনেকে এই আন্ডারওয়ার্ল্ড গ্যাঙ সম্পর্কে ভালো তথ্য রাখলেও নতুন উত্তরসুরি নিয়োগের ব্যাপারে তারাও কোনো কিছু জানাতে পারেননি। অনেকেই বলেছেন, ‘ভাইয়ের পদক্ষেপের ব্যাপারে আমরা এখন পর্যন্ত কিছুই শুনিনি।’

করাচি থেকে একটি সূত্র জানিয়েছে, আগামী শনিবার ৬০তম জন্মদিন উপলক্ষে একটি জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। ওই অনুষ্ঠান থেকে তার উত্তরসুরি নিয়োগ করা হবে। তবে জন্মদিনের অনুষ্ঠানের ভেনু সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কোনো কিছু জানা যায়নি। বিষয়টি সম্পূর্ণ গোপন রাখা হয়েছে। যারা অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্র পেয়েছেন, তাদেরকেও ভেনু সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি। অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার ঠিক দুই মিনিট আগে নির্দিষ্ট একটি স্থান থেকে অতিথিদের অনুষ্ঠানস্থলে নিয়ে যাওয়া হবে।

সূত্রটি জানায়, নিজের স্বাস্থ্যের ক্রমাবনতির কারণে তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ১০ বিলিয়ন ডলারের সম্পদের ডি-কোম্পানির উত্তরসুরি নিয়োগ করা হবে। মাদক ও অস্ত্র চোরাচালানের জন্য এ কোম্পানিটি বিখ্যাত।

ভাই নুরুল হক বা নুরার মৃত্যুর পর তিন ভাই আনিস, হুমায়ুন ও মুস্তাকিমের সঙ্গে বসবাস করছেন। হুমায়ুন ও মুস্তাকিম তার কাজের ব্যাপারে খুব একটা সক্রিয় নন। এ জন্য আনিস আহমেদকে উত্তরসুরির দায়িত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। ছোট শাকিলের সঙ্গে আনিস বিভিন্ন সময় গুরুত্বপূর্ণ অপারেশন পরিচালনা করেছেন।

দাউদের মাহরুখ নামে একটি মেয়ে ও মইন নামে এক ছেলে রয়েছে। মাহরুখের বিয়ে দিয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার জাভেদ মিয়াঁদাদের ছেলে জুনায়েদ মিয়াঁদাদের কাছে। আন্ডারওয়ার্ল্ডের জীবনে জড়ানোর ব্যাপারে ছেলের আপত্তি রয়েছে। দাউদও চান না, নিজের সন্তানদের এই জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে। তাছাড়া দাউদের স্ত্রী অনেক দিন থেকেই এসব ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে দাউদকে চাপ দিয়ে আসছেন।

তথ্যসূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইন।