মেইন ম্যেনু

আপত্তিকর লেখা পড়ে যা করছে উঠতি বয়সের ছেলে-মেয়ে

বিভিন্ন আপত্তিকর ও উত্তেজক লেখা পড়ে উঠতি বয়সের ছেলে ও মেয়ের মধ্যে প্রবল উত্তেজনা তৈরি হবার ফলে অনেকে নিজের সেক্স পাওয়ার ঠিক আছে কিনা যাচাই করতে প্রবল আগ্রহের সাথে বিভিন্ন হোটেলে, বন্ধু বান্ধবীর সঙ্গে অথবা পাড়ায় গিয়ে পরীক্ষা করে।

আর তখন বিপত্তি শুরু হয়। এর শুরুতে নানা ধরনের টেনশন, বিভিন্ন ধরনের নেগেটিভ চিন্তা লিঙ্গের সাইজ নিয়ে, ক্ষমতা নিয়ে, শক্তি নিয়ে, বিয়ে নিয়ে, বাচ্চা হওয়া নিয়ে, বউ থাকবে কিনা, বউয়ের সামনে লজ্জা পেতে হবে কিনা? সোজা কথা অনেক ছেলে বলে ফেলে আমি বিয়ে করতে পারব কিনা।

১. বয়স বিদ্ধির কালে হস্তমৈথুনের কারণে শরীর থেকে সমস্ত শক্তি বের হয়ে যায়, কর্ম ক্ষমতা কমে যায়, শরীর ভেঙ্গে যায়।

২. বিভিন্ন ধরনের পর্নোগ্রাফি দেখা।

৩. যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট খাওয়া।

৪. নেশা দ্রব্য যেমন ফেনসিডিল, ইয়াবা, গাঁজা, হেরোইন, মদ ইত্যাদি সেবন।

৫. সেক্স সম্পর্কে অজ্ঞতা।

৬. বন্ধু বান্ধবের কাছ থেকে সেক্স সংক্রান্ত ভুল তথ্য শিক্ষা লাভ করা।

৭. হাটে বাজারে মাইকিং শুনে বিভিন্ন বিভ্রান্তিকর তথ্য বিশ্বাস করা।

৮. শিক্ষা কারিকুলামে কোন সেক্স এডুকেশন না থাকা।

৯. কিছু অবসেস্ট ধরনের ছেলে মেয়ের মধ্যে এই সমস্যা বেশি দেখা যায়।

১০. নিজের পুরুষত্ব যাচাই করতে পাড়ায় গিয়ে ভয়ের কারণে প্রথম প্রথম সমস্যা দেখা দেয়।
যেমন আগেই বির্যপাত হয় অথবা ঠিকমত গরম হয় না। আর তখনই তার মধ্যে ধারণা তৈরি হয়,
আমি বোধ হয় ব্যর্থ পুরুষ।

লক্ষণ:

১. রোগীদের অভিযোগ থাকে প্রস্রাব দিয়ে ক্যালসিয়াম যায়, ধাতু যায়, শরীর ক্ষয় হয়ে যায়।

২. কেউ কেউ হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে যায়, ফিট হয়ে যায়, বার বার মূর্ছা যায়। ইতিহাস নিয়ে জানা গেলো যে, তার মাথায় সব সময় লিঙ্গ নিয়ে বিভ্রান্তি মূলক চিন্তা কাজ করছে।

৩. আবার কারও মধ্যে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা, পেট ব্যথা, মাথা ব্যথা, তল পেটে ব্যথা, প্রস্রাবে জ্বালা পোড়া, কিটকিট করে কামড়ানো ইত্যাদি থাকে।

৪. এই সেক্স সমস্যা নিয়ে কেউ কেউ ফকির কবিরাজ এই ডাক্তার ওই ডাক্তার দেখিয়ে ঘুরে বেড়িয়ে সর্বস্বান্ত হয়।

৫. সেক্সের সমস্যার কারণে অনেকে অবসেশনের মত হয়ে যায়।

৬. এই ভ্রান্ত ধারণা নিয়ে কর্ম ধর্ম বাদ দিয়ে সারাক্ষণ ঘুরে বেড়ায় সমাধানের জন্য। আমি তো ব্যর্থ, আমার দ্বারা কিচ্ছু হবে না।

৭. কেউ কেউ যৌন সংক্রান্ত রোগ বেঁধে নিয়ে আসে।

৮. লিঙ্গ ছোট বড়, আগা চিকন গোড়া মোটা, এই রকম হাজারো উদ্ভট চিন্তা মাথায় আসতে থাকে।

৯. নাইট প্রেসার নিয়ে থাকে হরেক রকম নেগেটিভ চিন্তা। বীর্য যাতে নষ্ট না হয় এই ভয়ে বাবা মা ছেলেকে বিয়ে করিয়ে দেন।

১০. অনেকে চুপচাপ থাকে, থুম মেরে বসে থাকে, কোন কথা বলে না, কাজ করে না, ঘুম হয় না। সব কিছুতেই নেগেটিভ চিন্তা জীবন নিয়ে, ভবিষ্যত নিয়ে, সংসার নিয়ে। ধীরে ধীরে বিষন্নতার দিকে ধাবিত হয় এবং আত্মহত্যার প্রবণতা নিয়ে আসে। যদি কোন যুবকের সেক্স নিয়ে, বিয়ে নিয়ে টেনশন থাকে তাহলে সাইকিয়াট্রিস্ট এর দ্বারা চিকিংসা করিয়ে বিয়ে করা উচিত।