মেইন ম্যেনু

আপনিও হতে পারেন মহাকাশের নতুন দেশের নাগরিক!

পৃথিবীতে থাকতে থাকতে বোর হয়ে গেছেন? মহাকাশে তৈরি হচ্ছে এক নতুন দেশ। থাকতে চান নাকি সে দেশে? এক্ষুনি আবেদন করুন। প্রথম এক লাখ নাগরিকের মধ্যে জায়গা পেতে হুড়োহুড়ি পড়ে গেছে। অতএব শুভস্য শীঘ্রম। খবর জিনিউজের।

সে দেশের নাম-আসগার্ডিয়া। নামটা শুনে অচেনা লাগছে তো? স্বাভাবিক। নাহ্, সেটা মোটেই স্বাভাবিক নয়। বরং বড় বেশি অস্বাভাবিক। কারণ, আপনি যদি আসগার্ডিয়ার নাম না জানেন, তাহলে সেটা আপনার ব্যর্থতা।

চাকরির আবেদন তো বহু করেছেন। এমনকী অন্য দেশের নাগরিক হতেও অ্যাপ্লিকেশন লিখেছেন হামেশাই এমন লোকও রয়েছে। কিন্তু মহাকাশে জীবনভর থাকার আবেদন করেছেন কখনও? নিশ্চয়ই করেননি। এক্ষুনি করুন। না হলে পস্তাবেন।

পৃথিবীর রূপ, রস, গন্ধে ফেড আপ হয়ে গেছেন? চলুন আসগার্ডিয়া। ভূমিহীন পৃথিবীতে বাস করতে চান? চলুন আসগার্ডিয়া। সম্পূর্ণ অন্য এক জগতের স্বাদ পেতে চান? চলুন আসগার্ডিয়া।

মিশন আসগার্ডিয়া। আগামী বছর আসগার্ডিয়ার প্রথম স্যাটেলাইট পাড়ি দিচ্ছে মহাকাশে। সেখানেই তৈরি হবে প্রথম স্পেস স্টেশন। পৃথিবীর প্রায় পনেরো কোটি মানুষ সেখানে থাকবেন এবং কাজ করবেন। আসগার্ডের ঈশ্বর নর্সের নামে মহাকাশের এই নতুন দেশের নামকরণ। আসগার্ডিয়ায় বসে মহাকাশ প্রযুক্তি বানাবেন সেদেশের মানুষ।

আবেদন করুন asgardia.space ওয়েবসাইটে। ইতিমধ্যেই প্রায় নব্বই হাজার আবেদন জমা পড়েছে। নতুন দেশের স্বীকৃতি পেতে সরকারিভাবে রাষ্ট্রসঙ্ঘে আবেদন করা হবে। জানিয়েছেন আসগার্ডিয়া প্রকল্পের টিম লিডার ইগর আশুরবেইলি। সম্প্রতি প্যারিসে সাংবাদিক বৈঠক করে সুখবরটা শুনিয়েছেন তাঁরা। শুরু হয়ে গেছে নতুন এই দেশের জাতীয় পতাকা ডিজাইনের কাজ। আসগার্ডিয়ার নাগরিক হবেন যাঁরা, তাঁদের প্রত্যেককে যে মহাকাশেই থাকতে হবে, এমন কোনও ধরাবাঁধা নিয়ম নেই। ঠিক যেমন পৃথিবীর নাগরিক থাকতে পারেন যে কোনও দেশেই।