মেইন ম্যেনু

আফগান ক্লাবকে হারিয়ে ফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনী

আফগানিস্তানের ক্লাব ডি স্পিন ঘার বাজানকে ৩-১ গোলে পরাজিত করে ফাইনালে পৌঁছে গেছে চট্টগ্রাম আবাহনী। ম্যাচের ২৪ মিনিটে প্রথম কাঙ্খিত গোলের সন্ধান পায় স্বাগতিক চট্টগ্রাম আবাহনী। ডান প্রান্ত থেকে জাহিদ হোসেনের কর্নারে এমিলি হেড করে বল নিচে নামান। সেই বল মাটিতে পড়ার আগেই সতীর্থ ইয়োকো সামনিক প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডার ও গোলরক্ষকের মাঝখান দিয়ে হেডে বল জালে পাঠান (১-০)। উল্লাসে মাতোয়ারা গোটা গ্যালারী। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধের খেলা শেষ করে স্বাগতিক শিবির। দ্বিতীয়ার্ধেও আধিপত্য বিস্তার অব্যাহত থাকে চট্টগ্রাম আবাহনীর। ৫৯ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে ইয়োকো যে থ্রু পাস দেন, সেটা ধরে বক্সে ঢুকে মাঝামাঝি অবস্থান থেকে দুই প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডারকে নিজের দুই পাশে রেখেই বা পায়ের উঁচু শটে আগুয়ান গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন এলিটা কিংসলে। ২-০তে লিড নেয় চট্টগ্রাম আবাহনী।
৭৮ মিনিটে এক গোল শোধ করে বাজান। ফ্রি কিক নেন অধিনায়ক গোলাম হযরত। তা থেকে ডিফেন্ডার সাঈদ মোহাম্মদ হাশেমি যে হেড নেন, সেটা ধরতে পারেননি কিছুটা সামনে এগিয়ে থাকা আবাহনী গোলরক্ষক লিটন (১-২)।
শেষটা মধুর করেছেন এলিটা কিংসলে। ৮৯ মাঝ মাঠে বল দখলের লড়াইয়ে জয়ী জাহিদের লম্বা থ্রু পাস পান কিংসলে। সেই বল নিয়ে অনেকটা দৌড়ে প্রতিপক্ষ ডি বক্সের ভেতর ঢুকে পড়েন তিনি। এরপর বা পায়ের কোনাকুনি গড়ানো শটে পরাস্ত করেন গোলরক্ষককে (৩-১)। শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলের দারুণ এক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে চট্টগ্রাম আবাহনী।
আগামী ৩০ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় ফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনীর সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ ঢাকা মোহামেডান কিংবা ভারতীয় ক্লাব ইস্টবেঙ্গল।