মেইন ম্যেনু

আবার উত্তপ্ত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের কেন্দ্রীয় কারাগারের পরিত্যক্ত জায়গায় নতুন হল নির্মাণের দাবিতে রোববার সকাল থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

নয়াবাজার মোড়ে অবস্থান নেওয়ার কথা থাকলেও পুলিশের বাধার কারণে বাহাদুর শাহ পার্কের সামনে থেমে যেথে বাধ্য হন আন্দোলনকারীরা।

এ বিষয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ- ডিএমপি লালবাগ জোনের উপকমিশনার (ডিসি) মোহাম্মাদ ইব্রাহীম খান বলেন, শিক্ষার্থীদের রায় সাহেব বাজার অতিক্রম করতে দেওয়া হবে না। প্রয়োজনে তাদের দমনে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে।

এদিকে আন্দোলনকারীরা কোনো শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে আজও বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে দেয়নি।

সকাল ৯টার দিকে রায়সাহেব বাজার মোড়ে শতাধিক পুলিশ সদস্য বেরিকেড দিয়ে অবস্থান নেন যেখানে পুরুষদের পাশাপাশি অনেক নারী পুলিশ সদস্যও আছেন।

জগন্নাথের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন কর্মসূচির কারণে পুরান ঢাকার আদালতপাড়াসহ সব জায়গায় বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের কারণে জনসন রোড, ইংলিশ রোড ও রায় সাহেব বাজার মোড় এলাকায় গাড়ি চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে তীব্র যানযটের সৃষ্টি হয়েছে। এতে সাধারন মানুষ ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন।

২০০৫ সালে অনাবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা শুরু করা এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১১টি হল প্রভাবশালীদের দখলে ছিল। ২০০৯ সালে বৃহত্তর ছাত্র আন্দোলনে সরকারের উচ্চ মহলের টনক নড়ে। ওই সময় একাধিক হল বিশ্ববিদ্যালয়কে দিতে ভূমি মন্ত্রণালয়ের সুপারিশ থাকলেও তা কার্যকর করেনি ঢাকা জেলা প্রশাসন।

পরে ২০১১ ও ২০১৪ সালে জোরালো আন্দোলনে দুটি হল পুনরুদ্ধার হলেও তা ব্যবহার উপযোগী করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আরেকটি হল আগে থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের দখলে থাকলেও তা নিয়ে নেই কোনো পরিকল্পনা। নতুন দুটি হল নির্মাণের উদ্যোগেও রয়েছে দীর্ঘসূত্রতার অভিযোগ।

তবে চলমান আন্দোলনের মুখে হল নির্মাণ উদ্যোগে গতি আনার আশ্বাস দিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।