মেইন ম্যেনু

আবেদনময়ী মডেল থেকে এখন ‘পবিত্র মা’

ব্রিটিশ মডেল-অভিনেত্রী-গায়িকা সোফিয়া হায়াত। জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘বিগ বস’র সিজন সেভেনে হাজির হয়েছিলেন তিনি। তার শরীরি জাদুতে মুগ্ধ পুরুষের সংখ্যা কম নয়। কিন্তু হঠাৎ করেই যেন নান বনে গেছেন তিনি। আবেদনময়ী মডেল থেকে নান হয়ে সোফিয়া সংবাদের শিরোনামও হয়েছেন। স্বাভাবিক কারণেই প্রশ্ন উঠেছে হঠাৎ কী এমন ঘটল যে, জীবনধারা পাল্টে ফেলতে চাইছেন এ অভিনেত্রী।

সোফিয়ার এ পরিবর্তন রাতারাতি হয়নি। দুই বছর আগে থেকেই প্রস্তুতি চলছিল। বর্তমানে লন্ডনে অবস্থান করছেন সাবেক এ মডেল। ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমে তার জীবনধারা পরিবর্তন সম্পর্কে জানান সোফিয়া বলেন, ‘এ পরিবর্তন একটি ঐশ্বরিক কারণে হয়েছে। যার শুরুটা হয়েছিল দুই বছর আগে। আমি বলতে গেলে বাজে একটি প্রেমের সম্পর্কে ছিলাম। এ জন্য আত্মহত্যাও করতে চেয়েছিলাম।’

এক সময় অর্থ, খ্যাতির জন্য নিজের শরীর প্রদর্শন করেছেন। এখন তিনিই জাগতিক সকল সুখ বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। মেকআপ থেকে সুগদ্ধি সবকিছুই বর্জন করেছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা বিশেষ একটি কারণে পৃথিবীতে এসেছি। এ জন্য আমাদের সুন্দর হওয়ার প্রয়োজন নেই। মেকআপ একটি কৃত্রিম জিনিস যা আমাদের এমনভাবে প্রকাশ করে প্রকৃতপক্ষে আমরা যা নই। অভিনয়ের ব্যাপারেও বিষয়টি একই। এর সবকিছু মিথ্যা। আমি আমার জীবনে কখনো অভিনয় করব না।’
123
মডেল থাকা অবস্থায় যেমন ছিলেন সোফিয়া হায়াত

অভিনয় এবং মেকআপের পাশাপাশি বিয়ে, সেক্স এবং সন্তানের বিষয়টিও মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলেছেন সোফিয়া। তিনি বলেন, ‘আমি আর কখনো সেক্স করব না, বিয়ে করব না এবং সন্তানও নেব না। আমি একজন পবিত্র মা এবং সবাই আমার সন্তান। আমার সবাইকে বোঝাতে হবে নরক বলে কিছু নেই। তারা এখন যেখানে বাস করছে সেটিই স্বর্গ।’

সামাজিক জনকল্যাণকর কাজে মনোযোগী হতে চান জানিয়ে এ অভিনেত্রী বলেন, ‘আমি পৃথিবীকে আরো স্বর্গীয় হিসেবে গড়তে চাই।’ তবে সোফিয়া বিশেষ কোনো ধর্মে বিশ্বাস করেন না। তিনি বলেন, ‘মানবতা আমার ধর্ম। আমি হিন্দুও নই, ক্যাথলিকও নই। আমার ধর্ম বলতে আমি ভালোবাসা এবং সংঘবদ্ধতাতে বিশ্বাস করি।’