মেইন ম্যেনু

আমলা-ঝড়ের পরও সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে ৩৮ বলে অপরাজিত ৬৯ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেছিলেন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম দুটিতে দলে ছিলেন না হাশিম আমলা। তৃতীয় ম্যাচে দলে ফিরেই দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান আবার ব্যাট হাতে ঝড় তুললেন, ৬২ বলে করলেন অপরাজিত ৯৭ রান।

আমলার ৯৭ আর ডেভিড মিলারের ১৬ বলে ৩০ রানের সুবাদে প্রোটিয়ারা স্কোরটা নিয়ে গিয়েছিল ১৭৮ রানে। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানদের সামনে খুব বড় স্কোর নয়। আগের ম্যাচে ২০৫ রান তাড়া করে জেতা অস্ট্রেলিয়া এবার ১৭৮ রানও টপকে গেল ৬ উইকেট আর ৪ বল হাতে রেখেই।

প্রথম ম্যাচ হারের পর শেষ দুই ম্যাচে দুর্দান্ত জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজও ২-১-এ জিতে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলা আমলাকে সান্ত্বনা খুঁজতে হচ্ছে ম্যাচসেরার পুরস্কার নিয়ে।

কেপটাউনের নিউল্যান্ডসে বুধবার রাতে ১৭৯ রান তাড়া করতে নেমে অস্ট্রেলিয়াকে দারুণ সূচনা এনে দেন উসমান খাজা ও শেন ওয়াটসন। উদ্বোধনী জুটিতে ৭৬ রান তোলেন দুজন।

অবশ্য প্রোটিয়া স্পিনার ইমরান তাহিরের করা নবম ওভারে খাজা ও ওয়াটসন- দুজনই সাজঘরে ফিরে যান। তাহিরের দ্বিতীয় বলে ফাফ ডু প্লেসিসকে ক্যাচ দেওয়া ওয়াটসন ২৭ বলে ৩ ছক্কা ও ২ চারে ৪২ রান করেন। আর পঞ্চম বলে আমলাকে ক্যাচ দেওয়া খাজা ২৫ বলে ৪ চার ও এক ছক্কায় ৩৩ রানের ইনিংস খেলেন।

একই ওভারে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়লেও তৃতীয় উইকেটে স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাটে সহজেই তা কাটিয়ে ওঠে অস্ট্রেলিয়া। এ জুটিতে ৮.২ ওভারে ৭৯ রান যোগ করে রানআউট হওয়ার সময় ২৭ বলে ৩৩ রান করেন ওয়ার্নার।

পরের ওভারে স্মিথ ২৬ বলে ২টি করে চার, ছক্কায় ৪৪ রান করে ফিরে গেলেও জয় পেতে কোনো সমস্যা হয়নি সফরকারীদের। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের ১০ বলে অপরাজিত ১৯ রানের ছোট্ট ঝোড়ো ইনিংসে ৪ বল হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া। ম্যাক্সওয়েলের ইনিংসে ছিল ২টি চার ও একটি ছক্কার মার। ১ বলে এক চার মেরে অপরাজিত ছিলেন মিচেল মার্শ।