মেইন ম্যেনু

আমার কণ্ঠস্বর বদলে গেছে : নোভা

মডেলিং ও অভিনয়ের মাধ্যমে নোভা দর্শকপ্রিয় হয়েছেন বেশ আগেই। এখন অভিনয় ও উপস্থাপনায় ব্যস্ত আছেন। বর্তমান ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রাসঙ্গিক বিষয়ে কথা বলেছেন এ তারকা।

কেমন আছেন? কেমন চলছে সব?

খুবই খারাপ অবস্থা। ভালো নেই একটুও।

কেন? কি হয়েছে?

আমি গত এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে জ্বরে ভুগছি। আমি একা নই, আমার ছেলেরও একই অবস্থা। কথা বলার অবস্থা নেই। কারণ জ্বরের সঙ্গে ঠা-াটাও লেগে গেছে। আমার কণ্ঠস্বর বদলে গেছে। বেশ কিছুদিন ধরে শুটিংয়ে যেতে পারছি না। বলতে পারেন বাসাই আমার আপাতত ঠিকানা।

সর্বশেষ কি কি কাজ করলেন?

এখন মোট তিনটি ধারাবাহিকের কাজ চলছে। এর মধ্যে রয়েছে ‘বারো ঘরের এক উঠান’, জীবন থেকে নেয়া এই শহরের গল্প’ ও নতুন টিভি চ্যানেল আনন্দ টিভির জন্য একটি। এছাড়া নতুন আরও দুটি ধারাবাহিকের ব্যাপারে কথা চলছে। নাটক দুটির চিত্রনাট্য পড়েছি। দারুণ লেগেছে। আমি কাজ করার ব্যাপারে প্রাথমিকভাবে সিদ্ধান্ত দিয়ে দিয়েছি। খুব সম্ভবত আগামী মাসের শুরুর দিকে নাটক দুটির শুটিং শুরু হবে।

খ- নাটকে অভিনয় করছেন না?

এখন তো শারীরিক অবস্থার জন্য কোনো কাজই করা সম্ভব হচ্ছে না। প্রস্তাব রয়েছে দুই তিনটি নাটকের। তবে এখনও কথা দিইনি। আগে শরীরটা ঠিক হোক। তারপর দেখি। বুঝেশুনে সিডিউল দেব।

খ- কিংবা ধারাবাহিক কোন ধাঁচের নাটকে আপনার আগ্রহ বেশি?

আমি একজন অভিনয়শিল্পী। তাই সব ধরনের নাটকে কাজ করতে হয়। তবে খুব বেশি দূর্বলতার কথা যদি বলি, তাহলে বলবো খ- নাটকেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। কারণ এর মধ্য দিয়ে স্বল্প সময়ে দর্শক বিনোদন দেয়া সম্ভব। আর ধারাবাহিকে আমরা অনেকেই কাজ করি। কিন্তু আসলে ব্যাপারটা হলো দর্শককে ধরে রাখা মুশকিল। দেখা যায়, ১০-১৫ পর্ব প্রচার হলে নাটক এখন আর দর্শক দেখেন না । গল্প থাকে না। এক কথায় গল্প ঝুলে যায়।

গল্প কেন ঝুলে যায় বলে মনে হয় আপনার?

গল্প ঝুলে যাওয়ার অন্যতম কারণ হলো, যে চরিত্রটি নাটকে দেখানো হচ্ছে সেটা ঠিক রাখতে পারেন না নির্মাতা। যাকে দিয়ে ওই চরিত্রে অভিনয় করানো হচ্ছে তার সিডিউল নিয়ে ঝামেলা পাকে। এক পর্যায়ে শিল্পী পরিবর্তন করা হয়। কিংবা চিত্রনাট্যে পরিবর্তন আসে। তখনই এলোমেলো একটা গল্প দর্শকের সামনে উপস্থাপন করা হয়। আর তা নিয়ে নানারকম ঝামেলার সৃষ্টি হয়। পাশাপাশি বিজ্ঞাপনের যন্ত্রনা তো রয়েছেই। অতিমাত্রায় বিজ্ঞাপন প্রচার হয় বলে দর্শক চ্যানেল পরিবর্তন করতে বাধ্য হচ্ছেন।

এর সমস্যার সমাধান কি হতে পারে বলে মনে করছেন?

আসলে এসব সমস্যা সমাধানের জন্য বড় ও বিজ্ঞজনরা আছেন। তারাই ভালো বলতে পারেন। আমি একজন অভিনয়শিল্পী বা দর্শকের জায়গা থেকে যদি বলি, যেসব জায়গায় সমস্যা দেখা যাচ্ছে সেটা নিয়ে সবার বসা উচিৎ। বিশেষত বিজ্ঞাপনের ব্যাপারটি। আমরা ভারতীয় চ্যাানেলে দোষ দিই অনেকে। কিন্তু তাদের তো কোন দোষ নেই। আমরা নিজেরা যদি বিজ্ঞাপন নিয়ন্ত্রণে রেখে নাটক প্রচার করি তাহলে তো দর্শক আমাদের নাটকই দেখবেন। দেখুন বিজ্ঞাপন ও অনুষ্ঠান একটি আরেকটির পরিপূরক। নাটক বা অনুষ্ঠান যদি টিভি চ্যানেলের ইঞ্জিন হয় তাহলে বিজ্ঞাপন হলো ফুয়েল। তাই এই দুটোর ভারসাম্য দরকার। এটা যদি সম্ভব হয় তাহলে সমস্যার সমাধান আসবে।

একসময় বিজ্ঞাপনে কাজ করতেন। এখন বন্ধ কেন?

আমি অনেকদিন ধরে বিজ্ঞাপনে কাজ করি না। আমার ছেলে রাফাত জন্মের আগে থেকেই কোন কাজ করা হয় না। তবে এখন থেকে বিজ্ঞাপনে কাজ করতে চাই।

উপস্থাপনাও করছেন। নতুন আর কোন কাজ করার পরিকল্পনা আছে?

বাংলাভিশনের প্রচার চলতি অনুষ্ঠান ‘সৌন্দর্য্য কথা’র উপস্থাপনা করছি। ভাল লাগছে কাজটি করতে পেরে। নতুন কিছু অনুষ্ঠান উপস্থাপনার কথা চলছে। তবে এখনও নিশ্চিত নয়।

ব্যক্তিগত জীবন কেমন যাচ্ছে?

আলহামদুল্লিাহ অনেক ভাল। স্বামী রায়হান আর আমার একমাত্র ছেলে রাফাতকে নিয়ে অনেক সুখে আছি।-মানবজমিন