মেইন ম্যেনু

‘আমার কিছুই বলার নেই!’

আরাফাত সানির খবরটা তাও একরকম মেনে নিয়েছিলো বাংলাদেশ। তাই বলে তাসকিন আহমেদ! সুদর্শন, মসৃন বোলিং অ্যাকশনের তাসকিন আহমেদের বোলিং অ্যাকশনও অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে- এটা শুনে পুরো বাংলাদেশ স্তম্ভিত, বিস্মিত এবং ক্ষুব্ধ।

সিদ্ধান্তে স্বাভাবিক ভাবেই হতাশ তাসকিন আহমেদ। এমনকি তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জানালেন, ক্ষোভে রীতিমত কথা বলার ভাষাই তিনি হারিয়ে ফেলেছেন।

লিখেছেন, ‘নাথিং টু সে!’ যার বাংলা করলে দাঁড়ায় – ‘আমার কিছুই বলার নেই!’

জানিয়ে রাখা ভাল, বিশ্বকাপের প্রথম পর্বে ধর্মশালায় নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচে আরাফাত সানির সঙ্গে তাসকিনের অ্যাকশন নিয়েও সন্দেহ তোলেন আম্পায়াররা। পরে গত ১২ মার্চ স্পিন কোচ রুয়ান কালপাগের সঙ্গে সানি ও ১৫ মার্চ পেস বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিকের সঙ্গে তাসকিন চেন্নাইয়ে গিয়ে বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দেন।

শনিবার সেগুলোরই চূড়ান্ত রিপোর্ট এসেছে। সেখানে দেখা যায়, আরাফাত সানি সব অর্থেই নিষিদ্ধ। মানে, সানির বেশির ভাগ বলেই কনুই ১৫ ডিগ্রীর বেশি বাঁকে। তবে, তাসকিনের ব্যাপারে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, তাসকিনের সব ডেলিভারি অবৈধ নয়।