মেইন ম্যেনু

আমিতো শূন্যরানেও আউট হতে পারতাম: মুশফিক

নিউজিল্যান্ড সফরের শুরুতে ক্রাইস্টচার্চের ম্যাচে চোটে পড়ার পর কেঁদেছেন বাংলাদেশ দলের টেস্ট ক্যাপ্টেন মুশফিকুর রহিম। জাতীয় দলের দীর্ঘদিনের এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান মুশফিক এ প্রসঙ্গটি তুলে বুধবার বললেন, ‘নিউজিল্যান্ড সফরের শুরুর দিনগুলোর সবগুলো ভেন্যুতে আমরা ব্যাটিংবান্ধব উইকেট পেয়েছি। নিউজিল্যান্ড সফর নিয়ে অনেকদিন ধরে নিজের অনেক স্বপ্ন-পরিকল্পনা ছিল। কারণ এখানকার উইকেটে যে সব ব্যাটসম্যান ভালো রান করতে পারে, তাদের রেটিং সেভাবে হয়। কিন্তু পারলাম কই।’ কথাগুলো বলার পরই মুশির চোখেমুখে ভেসে উঠে হতাশার ছায়া।

এরপরই প্রশ্ন করা হয় মুশফিককে- অনেকে মনে করেন ব্যাটিংয়ে আপনি থাকলে দল জিততো। এ প্রশ্নের জবাবে মুশফিক মজা করে বলেন, ‘আমিতো শূন্যরানেও আউট হতে পারতাম।’

মুশফিককে প্রশ্ন করা হয়, চোটের কারণে দ্বিতীয় ওয়ানডে থেকে আপনি দলের বাইরে থেকে দলের বিপর্যয়গুলো দেখেছেন। বোলিং-ব্যাটিং উভয় ক্ষেত্রেই এটা ঘটেছে। একটা সময় ভালো

অবস্থায় থেকে আমরা যখন জয়ের সুবাস পাচ্ছিলাম তখন বাজে বোলিং বা ব্যাটিং এর কারণে জয়ের বদলে উল্টো বিপর্যয় নেমে এসেছে। ব্যাটসম্যানদের ঘাটতিটা কোন জায়গায় মনে হয়েছে? বাইরে থেকে অনেকের মনে হয়েছে টিম অভিজ্ঞতার অভাব। এই ঘাটতিটা কীভাবে সামাল দেওয়া সম্ভব? টেস্টের ক্ষেত্রে এর কোনও প্রভাব পড়বে কিনা জানতে চাইলে আশাবাদী ক্যাপ্টেন মুশফিক বলেন, ‘এটা দু’রকম হতে পারে। অনেক সময় অনেকে টেস্টের মেজাজ বুঝে ভালো ইনপুট দিতে পারে। এটি অনেক বোলারের ক্ষেত্রেও হতে পারে। আমার মনে হয় আমাদের প্রত্যেকে যদি টেস্টের মেজাজ বুঝে খেলতে পারি তাহলে সমস্যা হওয়ার কথা না। এখন যারা আছে তাদের অনেকের হয়তো অভিজ্ঞতার ঘাটতি আছে। কিন্তু যে কোনও ভালো কিছু করার যোগ্যতা, ক্ষমতা তাদের আছে। এরজন্যে তারা জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছে। আবার আমাদের চার-পাঁচজন বোলার আছে যারা অনেক উঁচু মানের। আমাদের কোচিং স্টাফও অনেক উঁচু মানের। তারা যদি তাদের পরিকল্পনামতো কাজগুলোর প্রয়োগ করতে পারে তাহলে বোলিং- ব্যাটিং- যে কোনও ক্ষেত্রে তারা ভালো করতে পারবে।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘আর ঘাটতি বলতে আমি মনে করি যে বিদেশের মাটিতে একটি দলের জন্যে যখন যে সুযোগ আসে সেটি যদি আয়ত্ত্ব করা না যায় সেখান থেকে বের হয়ে আসা অনেক কঠিন। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় বাংলাদেশের কোনও স্পিনারের জন্যে যখন একটা-দুটো সুযোগ আসলো তখন এ ধরনের আরও সুযোগ আসতেই থাকে। এখানে আগের ম্যাচগুলোয় আমাদের ব্যাটসম্যানদের জন্যে অনেক সুযোগ ছিল। কারণ এখন পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের যে ভেন্যুগুলোতে আমরা খেলেছি এখানে আসার আগে ভাবতেই পারিনি যে এখানকার উইকেটগুলো এতটা ব্যাটিংবান্ধব হবে। বল বুঝে বুঝে খেললে হয়তো আমাদের ব্যাটসম্যানরা এখানে আরও ভালো খেলতে পারতেন।’

আশাবাদী মুশফিক সামনের লক্ষ্য উল্লেখ করে বলেন, ‘আগে যা হওয়ার হয়ে গেছে। এখন পুরো দলের সবাই মিলে যেভাবে অনুশীলন করছেন, সবাই যেমন মানসিক অবস্থায় আছেন। তাতে টেস্টে আমরা ভালো ফলাফলের জন্যে চেষ্টা করবো।’