মেইন ম্যেনু

আমি বেশ কয়েকবারই তাবলীগে গিয়েছি : ইমরান এইচ সরকার

বেশ কয়েকবারই তাবলীগে গিয়েছেন বলে জানিয়েছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডাঃ ইমরান এইচ সরকার। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে নিজের ভেরিফায়েড পেজে এক পোস্টে ফয়সাল মাহমুদ নামের এক ব্যক্তির মন্তব্যের উত্তর দিতে গিয়ে তিনি এ তথ্য জানান।

গত ১৫ এপ্রিল ওই পোস্টে ভেঙ্গে ফেলা প্রতিমার ছবি দিয়ে ইমরান এইচ সরকার লিখেন, ‘গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বরিশাল গ্রামের মন্দিরে প্রতিমাগুলো রাতের অন্ধকারে ভেঙ্গে ফেলায় কারো কি অনুভূতিতে আঘাত লাগলো না? ৪ দিন অতিবাহিত হলো কই কারো তো নিশানা পেলাম না? কেন, সনাতন ধর্মের মানুষদের কি এদেশে বাঁচার অধিকার নেই, ধর্ম পালনের অধিকার নেই? মুয়াজ্জিন হত্যায় আমরা যেমন আহত হই তেমনি পুরোহিত হত্যায়ও আহত হই। কেননা, আমরা প্রত্যেকটি মানুষের ধর্ম পালনের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করি।’

a_21

ইমরান এইচ সরকারের ওই পোস্টে ফয়সাল মাহমুদ নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘জনাব ইমরান সাহেব, মোয়াজ্জেন হত্যার পরে কিন্তু আপনি কোন স্ট্যাটাস দেননি। আচ্ছা আপনিতো মুসলিম। জানেন, পবিত্র কোরআনে ‘ইমরান’ নামে একটা সুরা আছে। আপনার জন্য আমার খুব মহব্বত লাগে।ভাই নিজের ধর্ম স্বকিয়তা বজায় রাখুন। দেখবেন ধর্মের অনুশাষনে কি মজা। যদি কোন মৈীলবাদি বন্দু থাকে তাহলে সুযোগ পেলে তিনদিনের তাবলীগ জামাতে বের হইয়েন। জীবনে তো কত কিছুই করলেন। শাহবাগে লক্ষ জনতার ঢল আপনারই অবদান। তনুর জন্য লংমার্চসহ অনেক কৃতি বিশ্ববাসি প্রত্যক্ষ করছে। প্লিজ ভাই, তিন দিনের তাবলীগে যান। আশা করি আপনার দ্বারা ইসলামের অনেক অনেক বড় খেদমত হবে। আল্লাহ আপনাকে কবুল করুন,আমীন।

b_24

জবাবে ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘প্রথমতঃ আমি আমার প্রায় সকল বক্তব্যেই মুয়াজ্জিনসহ সকল হত্যার বিচার চেয়েছি। এখন আপনারা যদি আমার বক্তব্য না শোনেন সেটার দায় কি আমার? দ্বিতীয়তঃ আমি বেশ কয়েকবারই তাবলীগে গিয়েছি। আমি যা করছি কোনোটাই ধর্মের বিরুদ্ধে নয়। বরং ধর্মেই অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে বলেছে, সত্য ও সৎ পথে থাকতে বলেছে, মানুষকে ভালোবাসতে বলেছে। ধন্যবাদ।’