মেইন ম্যেনু

‘আমি ভালো ছেলে বলে তোমাকে ছেড়ে দিলাম’

সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে প্রেমের সম্পর্ক গুলো খুবই ঠুনকো হয়ে পড়ছে। নাকি আসলে প্রেম বলতে যে ব্যাপারটা রয়েছে সেটার ভিত্তি তৈরি হওয়ার আগেই সম্পর্ক গুলো ভেঙে যাচ্ছে। প্রায়শই এখন সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেসবুকে রিলেশনশিপ হুটহাট পরিবর্তনা হয়ে যাওয়া যেন এখন স্বাভাবিক বিষয়। ঠিক যেমনটা আয়োজন করে রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস দেওয়া হচ্ছে, তারপরে যুগল ছবি প্রতিনিয়ত শেয়ার করা হচ্ছে।

ঠিক সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার সাথে সাথে ছবি মুছে ফেলা হচ্ছে। আসলেই কি সেই ছবি মুছে গেল? কেউ কি ছবিগুলো সংরক্ষণ করছে না। না হলে ভেঙে যাওয়া সম্পর্কের পরে কিভাবে ব্ল্যাকমেইলিং এর মতো বিষয় গুলো ঘটছে। ম্পর্কের শুরুর যেমন আয়োজন থাকে, তেমনি থাকে ভেঙে যাওয়া সম্পর্ক নিয়ে প্রবোধ গাঁথা।

অথচ এসব পোস্ট পাবলিক করাই থাকে। তাতে কি হয়? সম্প্রতি এমনই এক টিনেজার মেয়ের ভেঙে যাওয়া প্রেম এবং সম্পর্কের টানাপড়েন এবং সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার গল্প ফেসবুকে শেয়ার করেছেন- আসুন তাঁর গল্পটা শুনি

‘আচ্ছা ভালোবাসা মানে কি শুধুই হাত ধরা বা আরো ক্লোজ কিছু?
এগুলা না থাকলে কি ভালোবাসা হয় না??

কেউ একজন আমাকে ছেড়ে যাওয়ার আগে বলেছিল কিসের ভালোবাসা কিসের ফিলিংস আমি কোনওদিন তোমার হাতটাও ধরই নি। টাচ ও করি নি তাহলে কি ভালোবাসি। তোমার কাছে ভালোবাসা মানে বুঝি ফিজিকাল বেপার সেপার?

আমাকে বলেছিলা আমি ভালো ছেলে বলে তোমাকে ছেড়ে দিলাম আমার যায়গায় অন্য কেউ হলে তোমার কিছু একটা করে তোমাকে ছেড়ে যেত।

ভালোবাসতাম তোমাকে অনেক অনকে বেশি বিলিভ করো আমি তোমাকে যতটা লাভ করি যত কেয়ার করি কেউ করবে না। তুমি বিলিভ করো না আমাকে বলো আমি দেখতে খারাপ না সব দিক দিয়ে ঠিক দেশের প্রথম সারির একটা যায়গায় পড়ি।

আমাকে যে কোনো মেয়ে ভালবাসবে। বিলিভ করো যখন তোমার কিছু ছিল না তখন আমি ছিলাম তোমার পাশে। এখন যে মেয়েটা তোমার ক্যারিয়ার দেখে মাছির মত তোমার পিছে আসছে সেই মেয়েকে নিয়ে আর যাই হক হ্যাপি হবা না তুমি।ফেসবুকে কম বেশি প্রায় সবাই জানে আমি একজন কে অনেক অনেক বেশি ভালোবাসতাম কম্বেশি সবাই তার কথা শুনতে শুনতে বিরক্তও হয়ে যেত। আর কাওকে বিরক্ত হতে হবে না।

সেই ছেলেটা এক বছর আগেই আমার লাইফ থেকে চলে গেছে।
আমি কস্ট পাই দেখে ফ্রেন্ড হয়ে আমার পাশে থাকার মিথ্যা অভিনয়টা সে ভালোই করেছে কস্ট কমার থেকে বাড়ছেই বেশি।

আজ থেকে বলছি আমি আর তোমাকে কোনোদিন বিরক্ত করব না।

কোনোদিন আমাকে আর দেখবা না তুমি একবারে চলে যাচ্ছি তোমার লাইফ থেকে। আফসোস তোমার জি এফ এর জন্য।এমন একজনের সাথে সে জেনেশুনে রিলেশনে গেল।

তোমাদের নিউ লাইফটা অনেক ভালো কাটুক।আমি যেমন কস্ট পেলাম ওকে বা তোমাকে যেনো তা পেতে না হয়।

রোজার সময় বলতে গেলে একজনকে আমি রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়েছিলাম হটাত করেই তার সাথে নিউমার্কেট যাওয়ার পথে অনেকটা ফিল্মিভাবে পরিচয়।সেই একজনটা এখন আমার পাশে আছে। আমি জানি সে পারবে কারণ তোমার মতো সো কল্ড হাই ক্যারিয়ার এর অহংকার অ্যাট লিস্ট তার নেই।

মনে রেখ তুমি যেমন একজন হবু ডক্টর আমি তেমন হবু ব্যারিস্টার ছিলাম। কেউ কোনো অংশে কারো কম ছিলাম না এটা ও বুঝলা না।

শুধু বুঝলা আমি কোনো পাব্লিক এ পড়ি না। আমার গায়ের রঙ দুধে আলতা না।
আমি আকাশের পরি না।

আমার চোখে যে এক নদী মায়া এক রাশ ভালোবাসা সেটা দেখলাই না। আসলেই তোমারা হাই ক্লাশ ছেলে।
ভালো থেকো তুমি অনেক অনেক বেশি।’

এরপরে কি হতে পারে? একটা ছেলে প্রতারণা করে চলে গেল। আর একটা বন্ধু হলো। চলে যাওয়া প্রেমিক হুমকিও দিয়ে গেল’ ‘আমি ভালো ছেলে বলে তোমাকে ছেড়ে দিলাম। কিন্তু সম্পর্কের ব্যাপারে এত তাড়াহুড়ো কেন?

বন্ধত্ব থেকে প্রেমের দিকে গড়ানোর আগে গভীরভাবে ভেবে নেওয়া দরকার নয় কি যে সাময়িক দুর্বলতাই প্রেম নয়, ভালোবাসা নয় ভালোবাসা হচ্ছে দীর্ঘ সময় পর উপলব্ধি করা ব্যাকুলতা। যদি তা নয়, তাহলে বন্ধুত্বই থাক না, কোনো সমস্যা নেই তো।কালের কণ্ঠ