মেইন ম্যেনু

আমি সংসদে যাব না : সেলিম ওসমান

নারায়ণগঞ্জের পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে কানধরে ওঠবস করানোয় ব্যাপক তোপের মুখে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান।

তার বিচার ও সংসদ সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দিতে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সরব হয়ে উঠেছে। রাজপথে নেমেছেন তারা।

এদিকে এমপি সেলিম ওসমান বলেছেন, শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনার তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমি সংসদে যাব না। এমনকি বিকেএমইএ ও চেম্বার অব কমার্সের দায়িত্ব থেকে দূরে সরে গেলাম। যদি তদন্তে আমি দোষী প্রমাণিত হই তাহলে সংসদসহ সব পদ থেকে অব্যাহতি নেব।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডের ৩য় তলার হলরুমে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, স্কুলের প্রধান শিক্ষক মুসলমান ও আল্লাহ রাসুলকে নিয়ে কটূক্তি করায় তাকে শাস্তি দেয়া হয়েছে। আমি একজন মুসলমান হয়ে তাকে শাস্তি দিতে পেরে কৃতজ্ঞতাবোধ করছি।

সেলিম ওসমান বলেন, আল্লাহ ও নবীজিকে নিয়ে কটূক্তি করা এবং জনগণের রোষানল থেকে বাঁচাতে তাকে শাস্তি দেয়া হয়েছে। সে নিজের ভুল স্বীকার কান ধরে উঠবস করতে সম্মত হওয়ায় জনগণের সামনে কান ধরে উঠবস করানো হয়েছে।

তিনি বলেন, শুধুমাত্র তার জীবন রক্ষার জন্যই এ কাজ আমাকে করতে হয়েছে। এটা করে আমি কোনো অন্যায় করিনি। প্রধান শিক্ষকের জীবন রক্ষা করায় তার পরিবারের লোকজন আমাকে লিখিতভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, এ ঘটনার বিষয়ে হাইকোর্ট রুল জারি করেছেন। শিক্ষকের জীবন রক্ষা করাটা যদি আমার অন্যায় হয়ে থাকে আদালত যদি আমাকে দোষী সাব্যস্ত করে ফাঁসি দেন তাতেও আমি মাথানত করবো।

এদিকে নারায়ণগঞ্জের পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে কানধরে ওঠবস করানোর প্রতিবাদে ও বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক। ঢাবির অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে তারা মানববন্ধনে অংশ নেন।

মানববন্ধনে তারা বলেন, শ্যামল কান্তি ভক্তকে কানধরে ওঠবস করানোর সময় উপস্থিত জনতা জয় বাংলা স্লোগান দিয়েছিল। জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। আজকে শিক্ষককে অপদস্ত করে জয় বাংলা স্লোগান দেয়া হচ্ছে। জয় বাংলা স্লোগান কি শিক্ষক অপমানের জন্য?

অধ্যাপক ফরিদ উদ্দীন আহমেদ বলেন, শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনায় আমরা লজ্জিত। এ ঘটনায় জড়িত স্কুলের ম্যানেজিং কমিটিকে কোনো সময় না দিয়ে অবিলম্বে বিলুপ্ত করতে হবে। তাকে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।

তিনি বলেন, সংসদ সদস্য হিসেবে থাকার নৈতিক অধিকার তিনি হারিয়ে ফেলেছেন। তার রাজনীতি করার অধিকার নেই। এ দেশে থাকার অধিকারও নেই তার।

এ সময় তিনি সংসদ থেকে সেলিম ওসমানকে অভিশংসন করার প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য স্পিকার এবং জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কারের জন্য আহ্বান জানান।