মেইন ম্যেনু

আমি সবচেয়ে বেশি যুদ্ধ করি নিজের সাথে : মুশফিক

দল জিতুক, হারুক; মুশফিকুর রহিমের সমালোচনা সহ্য করা পার্ট অব লাইফ হয়ে গেছে।

তিনি নিজেও হাসতে হাসতে বলেন, মাঝে মাঝে মনে হয়, দলের জয়ে অধিনায়কের কৃতিত্ব নেই। তবে পরাজয়ে দোষ আছে পুরোটা। এসব সমালোচনাকে তিনি খুব গুরুতর মনে করেন না বলছেন। তবে এটাও ঠিক যে, এতো বড় তারকা হিসেবে যতো জননন্দিত হতে পারতেন, তাও ঠিক হননি।

দৈনিক ইত্তেফাককে দেওয়া এক সাক্ষাৎ কারে মুশফিক বলেছেন, এই জনপ্রিয় হওয়াটা কখনোই তার লক্ষ্য ছিলো। তার লক্ষ্য ছিলো পারফরম করা, ‘টু বি অনেস্ট, আমি কখনোই পপুলার হওয়ার জন্য ক্রিকেট খেলিনি এবং সে চেষ্টাও করি না। আমি কখনো এই পরিকল্পনাও করিনি যে, অনেক বড় স্টার হবো বা এখনো নিজেকে সেটা মনেও করি না। আমি বুঝি, আমার কাজ হলো পারফরম করা। আমাদের সে জন্য জাতীয় দলে নেওয়া হয়। আমি কখনো আমার কোনো পারফরম্যান্সে আত্মহারা হই না।’

এসব কথা বলার মানে আবার এই নয় যে, মুশফিক সমালোচকদের কেবলই এড়িয়ে যান। গঠনমূলক সমালোচনা থেকে তিনি শেখার চেষ্টা করেন বলেও বলেছেন, ‘নেওয়ার চেষ্টা করি। আমি জানি যে, আমি মানুষ, ভুল করতেই পারি। ফলে গঠনমূলক সমালোচনা থেকে তো নেওয়ার কিছু থাকেই। আমি এই ধরনের সমালোচনা সবসময় পছন্দই করি। সমালোচনাটা গঠনমূলক হলে সেখান থেকে শেখারও থাকে অনেক কিছু। এতে অনুপ্রেরণাও পাওয়া যায়।’

মুশফিক বলছেন, তিনি নিজের কাছে সত থাকলে সমালোচনায় ক্ষতি হওয়ার কথা নয়, ‘আমি বিশ্বাস করি যে, নিজের কাছে সত্ থাকা ও সঠিক থাকাটাই প্রধান ব্যাপার। আমি যদি সঠিক কাজগুলো করি এবং সবাই সর্বোচ্চ পরিশ্রম করি, তারপর ফলাফল যাই হোক, আমি অখুশি হই না। কে কী বললো, এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ না। আমি সবচেয়ে বেশি যুদ্ধ করি নিজের সাথে। আমার সমালোচনা আমি সবচেয়ে বেশি করি এবং ভুল ধরার চেষ্টা করি। একজন অধিনায়ক হিসেবে, ব্যাটসম্যান হিসেবে, উইকেটরক্ষক হিসেবে আমার প্রধান বিবেচ্য হলো- আমি সততার সাথে কাজটা করছি কি না। সেটা করতে পারলে অন্য কারো কথায় কোনো প্রভাব পড়ার কথা নয়।’