মেইন ম্যেনু

আরসিবিসির অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছিল চুরি যাওয়া রিজার্ভ

বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি যাওয়া রিজার্ভ ৮ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলারের কিছু অর্থ ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছিল বলে স্বীকার করেছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। গত ৯ মার্চ মাকাতি সিটির জুপিটার শাখায় ওই অর্থ স্থানান্তর হয়েছিল- আরসিবিসি কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানোর পর বুধবার দেশটিতে ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দেয়।

আরসিবিসি ব্যাংকের করপোরেট ভাইস চেয়ারম্যান সিজার ভিরাতা এক বিবৃতিতে বলেন, ৮১ মিলিয়ন ডলারের মধ্যে জুপিটার শাখায় জমা ও স্থানান্তরিত হওয়া অর্থের তদন্ত করছে আরসিবিসি। ভিরাতা আশ্বস্ত করে বলেন, ব্যাংকের বাধ্যতামূলক গোপনীয়তা সম্পর্কে তারা জ্ঞাত আছেন এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্টের গোপনীয়তা সব সময় বজায় রাখা হবে।

এই কর্মকর্তা আরো বলেন, অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কমিশনের কাছে প্রয়োজনীয় প্রতিবেদন যথাসময়ে জমা দেওয়া হয়েছে এবং সরকারি কর্মকর্তাদেরকে এ বিষয়ে সহযোগিতা করা হবে। বুধবার সকালে ফিলিপাইনের জাতীয় দৈনিক দ্য ইনকোয়ারার এক প্রতিবেদনে একই উৎস থেকে ৮১ মিলিয়ন ডলারের মধ্যে থেকে কিছু অর্থ আরসিবিসি ব্যাংকে স্থানান্তরের ব্যবস্থা করা হয়েছিল বলে জানায়।

এতে বলা হয়, পরে ওই অর্থ আরসিবিসির স্থানীয় গ্রাহকের কাছে স্থানান্তর করা হয়। এছাড়া আরসিবিসির শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা এই অর্থ স্থানান্তরের বিষয়ে অবগত ছিলেন। তবে আরসিবিসির প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) লোরেনজো ট্যান এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, তার ১৮ বছরের স্থানীয় ব্যাংকিংয়ের রেকর্ড নিষ্কলঙ্কিত।

আরসিবিসির প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘চলমান তদন্তে আমি পূর্ণাঙ্গ সহযোগিতা করবো এবং বিশ্বাস করি যে, আমি এবং ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিষদ পুরোপুরি নির্দোষ প্রমাণিত হবে’।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে রাখা বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরি করে হ্যাকাররা। ঘটনা তদন্তকারী ম্যানিলার ব্লু রিবন কমিটি জানায়, আরসিবিসি ব্যাংকের মাকাতি সিটির জুপিটার স্ট্রিটের শাখা থেকে ওই ৮ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার দুই ব্যবসায়ীর সহ ব্যাংকটির চারটি অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করা হয়। পরে এই অর্থ তিনটি ক্যাসিনোতে ব্যবহার করা হয়। ইতোমধ্যে চুরি যাওয়া রিজার্ভের কিছু অর্থ ফিলিপাইনের অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কমিশনের কাছে জমা দিয়েছে ক্যাসিনো জাঙ্কেট অপারেটর কিম অং।

এদিকে, হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে আরসিবিসির চারটি অ্যাকাউন্টে সরিয়ে নেওয়া বাংলাদেশ ব্যাংকের ওই অর্থ চুরির ঘটনায় তদন্ত স্থগিত করেছে ম্যানিলার ব্লু রিবন কমিটি। বুধবার দেশটির জাতীয় দৈনিক দ্য ফিলিপাইন স্টার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, আগামী ৯ মে নির্বাচন অথবা ২৩ মে কংগ্রেসের বৈঠকের পরে এ বিষয়ে পুনরায় তদন্ত শুরু হবে।