মেইন ম্যেনু

আলামত সংগ্রহের পর শেষ ঠিকানায় তনু

আলোচিত সোহাগী জাহান তনুর লাশের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ, সুরতহাল তৈরি এবং পুনরায় ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। পরে তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর ও পুলিশ প্রহরায় তা গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।পরে রাত সোয়া ৮টায় তার লাশ মুরাদনগর উপজেলার মির্জাপুরে আগের কবরস্থানে দাফন করা হয়। লাশ দাফনের সময় হঠাৎ বৃষ্টি নামে। বৃষ্টির মাঝে অশ্রু সজল নয়নে শেষ ঠিকানায় স্বজনরা তনুকে রেখে আসে। তনুর চাচা আলাল হোসেন দাফনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে কুমিল্লার পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন জানান, কবর থেকে তনুর লাশ তুলে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে অধিকতর আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. কামদা প্রসাদ সাহার নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি মেডিক্যাল টিম তনুর লাশের আলামত সংগ্রহ করে।

পুলিশ সুপার আরও জানান, এরপর ভিক্টোরিয়া কলেজ ছাত্রী ও নাট্যকর্মী তনুর লাশ কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গ থেকে বুধবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আদালতের নির্দেশে পুনরায় ময়নাতদন্তের জন্য তনুর লাশ দাফনের ১০ দিন পর বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় কবর থেকে তোলা হয়। ২৮ মার্চ মামলার সুষ্ঠু তদন্ত, ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ, সুরতহাল তৈরি ও পুনরায় ময়নাতদন্ত করতে কবর থেকে লাশ তুলতে আদেশ দেন কুমিল্লার একটি আদালত।

গত ২০ মার্চ রাতে তনুকে সেনানিবাস এলাকায় হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ২১ মার্চ সন্ধ্যায় তনুকে তাদের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার মির্জাপুর গ্রামে দাফন করা হয়।