মেইন ম্যেনু

রাজনৈতিক হালচাল

আ’লীগ গ্রুপিংয়ে ব্যস্ত : মাঠে নেই বিএনপি, তবুও কোন্দল

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় মাঠের বৃহত্তম রাজনৈতিক দু’দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি মূলত দু’ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের দূর্গ হিসেবে পরিচিত ভাঙ্গা উপজেলার নেতাকর্মীরা মূলত আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ ও সংসদ সদস্য মজিবর রহমান চৌধুরী নিক্সন এ দু’ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

অন্যদিকে বিএনপি’র অবস্থাও একই রকম। এখানে উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি খন্দকার ইকবাল হোসেন সেলিম ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এম.এম. শাহরিয়ার রুমি এই দু’ভাগে বিভক্ত। গত নির্বাচনে আওয়ামীলীগের অন্যতম হেভিওয়েট প্রার্থী কাজী জাফরউল্লাহকে রাজনৈতিক মাঠে পরাজিত করে তরুন নেতা মজিবর রহমান চৌধুরী নিক্সন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় নেতাকর্মীরা অনেকেই তার দিকে ঝুঁকে পড়ে।

বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজে দু’নেতার রেষারেষিতে রাজনৈতিক মাঠ উত্তপ্ত হয়ে উঠে মাঝে মধ্যেই। মূলত তরুন নেতা নিক্সন চৌধুরী রাজনৈতিতে ভাঙ্গায় বিপ্লব সৃষ্টি করেন। ইমেজ পুনরুদ্ধারের কাজী জাফরউল্লাহ ও নেতাকর্মীদের নিয়ে মাঠ দখলের চেষ্টা করছেন।

অন্যদিকে ক্ষমতা হারানোয় বিএনপি’র অবস্থা লেজে গোবরে। স্থানীয় নেতাকর্মীদের উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি খন্দকার ইকবাল হোসেন সেলিমের বিরুদ্ধে রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন হাই কমান্ডের নির্দেশ অমান্য করে তিনি ইচ্ছামত পছন্দের ব্যক্তিদের নিয়ে পকেট কমিটি গঠন করছেন।

এতে ত্যাগী নেতাকর্মীরা চরমভাবে উপেক্ষিত রয়েছে। বিগত আন্দোলন সংগ্রামে তিনি কোন কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ না করে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে আতাত করে চলেন বলে কথিত আছে। তৃণমূল নেতাকর্মীরা যেখানে জেল জুলুম অত্যাচারে বিপর্যস্ত সেখানে তিনি আতাতের মাধ্যমে ব্যবসা বাণিজ্য চালিয়ে নেতাকর্মীদের সাথে কোন যোগাযোগই রাখেন না।

অন্যদিকে বিভিন্ন ইউনিয়ন কমিটিতে ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে এবং তাদের মূল্যায়নের পরিবর্তে পকেট কমিটি গঠন করছেন। এ দিকে ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা সম্প্রতি সংবাদ সম্মেলনেরও আয়োজন করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে কেন্দ্রীয় নেতা জেড.এম. দেলোয়ার হোসেন জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব এ্যাড. আলী আশরাফ নান্নু, পৌর বিএনপি নেতা আবু জাফর মুন্সি, মিজানুর রহমান পান্নাসহ অনেক নেতাকর্মী তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এ দিকে দলীয় কোন্দল থাকলেও আওয়ামীলীগ তাদের কাজকর্ম চালাচ্ছেন কোন ভাবে। অপর দিকে বিএনপি’র নেতাকর্মীরা তাদের আখের গোছাতে ব্যস্ত। ফলে বিশেষ কর্মসূচী ছাড়া বিএনপি’র কোন নেতাকর্মীকে মাঠে দেখা যাচ্ছে না।