মেইন ম্যেনু

আশকোনায় হচ্ছে এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়

হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পাশেই রাজধানীর আশকোনায় হচ্ছে দেশের প্রথম এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়। এজন্য সিভিল এভিয়েশনের ১২ একর জমি নির্বাচন করা হয়েছে। সম্পূর্ণ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আদলে চলবে বিশেষায়িত এ বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম।

মঙ্গলবার ( জুন ২৮) বিমান বাহিনীর সদর দপ্তরে এক জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে অংশ নেন বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আবু এসরার, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব এস এম গোলাম ফারুক, সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এহসানুল গণি চৌধুরী প্রমুখ।

বৈঠকে জানানো হয়, বিশ্বজুড়ে এভিয়েশন সেক্টরে বিপুল উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধি ঘটেছে, যা বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও সমানভাবে প্রযোজ্য। ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন (আইকাও) এর তথ্যানুযায়ী পৃথিবীতে প্রতিবছর বিমান পরিবহনে ২৩ হাজার জন পাইলট ও বিমান রক্ষণাবেক্ষণে ৩০ হাজার জনবল প্রয়োজন। আগামী ২০ বছরে এভিয়েশন সেক্টরে ১৭ হাজার নতুন দ্রুতগামী বাণিজ্যিক বিমানসহ ২৫ হাজার নতুন এয়ারক্রাফট, ৪ লাখ ৮০ হাজার টেকনিশিয়ান এবং ৩ লাখ ৫০ হাজার পাইলট এর প্রয়োজন হবে।

এভিয়েশন খাতে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা এবং বাংলাদেশি এভিয়েশন গ্রাজুয়েট তৈরিতে আন্তর্জাতিক এভিয়েশন মানসম্পন্ন ও আন্তর্জাতিক খ্যতিসম্পন্ন এভিয়েশন ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করতে পারলে এর মাধ্যমে বিদেশি শিক্ষার্থীদের আকর্ষণ করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন এবং দেশের মর্যাদা বৃদ্ধিতে কার্যকর ভূমিকা রাখা যাবে।

নতুন এ বিশ্ববিদ্যালয়ে লন্ডনের মিডলসেক্স ইউনিভার্সিটি, বার্নেল ইউনিভার্সিটি ও সিটি ইউনিভার্সিটির সাথে এডুকেশন এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম থাকবে।

বৈঠকে এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন সংক্রান্ত একটি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন এয়ার কমোডর ইয়াজদানী।