মেইন ম্যেনু

আশা-নিরাশার দোলাচলে মিরপুরের আকাশ

দক্ষিণ আফ্রিকা-বাংলাদেশ ঢাকা টেস্টের চতুর্থ দিনেও আশা-নিরাশার দোলাচলে মিরপুরের আকাশ। মিরপুরের আকাশ কখনো কেঁদে উঠছে আবার কখনো-বা হাসছে। বৃষ্টির কারণে চতুর্থ দিনের খেলা এখনো শুরু হয়নি।

আজ রোববার নির্ধারিত সময় সকাল সাড়ে ৯টায় চতুর্থ দিনের খেলা শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু রাত থেকেই মিরপুরে থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছিল। কখনো গুঁড়ি গুঁড়ি আবার কখনো-বা ঝুম বৃষ্টি। সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে বৃষ্টি থামলে শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পিচসহ আউটফিল্ড থেকে ত্রিপল সরিয়ে নেওয়া হয়। মাঠকর্মীরাও মাঠ পরিচর্যার কাজ করেন। তবে ১২ টার দিকে আবার গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়েছে। পিচ ত্রিপল দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়েছে। দুপুর ১টায় ম্যাচ অফিসিয়ালদের মাঠ পরিদর্শন করার কথা রয়েছে। দুই দলই মাঠে এসেছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘কোমেন’-এর প্রভাবে গত বৃহস্পতিবার রাত থেকেই ঢাকায় বৃষ্টি শুরু হয়। বৃষ্টিতে শুক্রবার বল মাঠে গোড়ানো ছাড়াই দ্বিতীয় দিনের খেলা পরিত্যক্ত হয়। শনিবার তৃতীয় দিনে অবশ্য খেলার মাঠে গোড়ানোর আশা জেগেছিল। সকাল সোয়া ১১টার দিকে বৃষ্টি থামলে পিচসহ আউটফিল্ডের ত্রিপল সরিয়ে নেওয়া হয়।

মাঠকর্মীরা প্রাণান্তকর প্রয়াস চালিয়ে মাঠ খেলার উপযুক্ত করলে দুপুর দেড়টায় ম্যাচ অফিসিয়ালরা মাঠ পরিদর্শন করেন এবং সোয়া ২টায় খেলা শুরুর সিদ্ধান্ত নেন। তার আগে দুই দলের খেলোয়াড়রা মাঠে আসেন দুপুর ১টায়। গা গরম করে মাঠে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তারা। কিন্তু দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে মিরপুরে আবার ঝুম বৃষ্টি। বৃষ্টির প্রতাপ এত বেশি ছিল যে ৩টা ৫ মিনিটে তৃতীয় দিনের খেলাও পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা।

প্রথম দিনের ৮৮.১ ওভার খেলা শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২৪৬ রান। ১৩ রানে অপরাজিত রয়েছেন নাসির হোসেন। প্রথম দিন দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৫ রান করেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে ডেল স্টেইন ও জেপি ডুমিনি নেন ৩টি করে উইকেট।

এর আগে চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টেও বৃষ্টি বাগড়া দিয়েছিল। বৃষ্টিতে শেষ দুই দিনের খেলা পরিত্যক্ত হওয়ায় নিষ্প্রাণ ড্র হয় ম্যাচটি। ফলে ঢাকা টেস্ট সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে পরিণত হয়েছে। কিন্তু এখানেও দুই দিনের খেলা বৃষ্টির পেটে চলে গেছে।