মেইন ম্যেনু

আশুলিয়ায় পোশাক কারখানার ভবন থেকে শ্রমিকের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার

টিপু সুলতান (রবিন), সাভার প্রতিনিধি : সাভারের আশুলিয়ায় একটি তৈরি পোশাক কারখানার অভ্যন্তরে শারিরকি নির্যাতন করে এক শ্রমিককে হত্যার অভিযোগ এনে প্রায় ৫ হাজার শ্রমিকের বিক্ষোভ ও কর্মবিরতি পালন।  যে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কারখানাটিতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে ঘোষবাগ এলাকার সোনিয়া স্যোয়েটার লিমিটেডের এগারো তলা ভবনের পঞ্চম তলায় স্যুইং অপারেটর মামুনের ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পায় শ্রমিকরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শ্রমিকরা জানায়, মামুনকে নির্যাতন করে হত্যার পর তার মৃতদেহ ফ্যানের সাথে টানিয়ে রাখা হয়েছে।

এদিকে নিহত মামুনের বোন অভিযোগ করেন, গতকাল বিকেল ৫টার পর মামুনকে কারখানা কতৃপক্ষের কোন এক কর্মকর্তা মোবাইল ফোনে কারখানায় ডেকে নিয়ে আসে। এরপর আজ ভোরে কারখানার ভিতরে কর্মস্থলের পঞ্চম তলায় মামুনের মৃতদেহ পাওয়া যায়। এসময় তারা মামুনের অকাল মৃত্যুতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তারা।

এব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা না নেওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি সহ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে বলে জানিয়েছে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা।

এসময় বিক্ষুব্ধ শ্রমিক ও মামুনের স্বজনেরা হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার দাবী করলে মালিকপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

নিহত শ্রমিকের নাম মো.মমিনুল হক মামুন। সে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানার জিরাই পশ্চিমপাড়া গ্রারেম শুকুর আলীর ছেলে।

এঘটনায় গলায় ফাঁসির দেওয়া মরদেহের মধ্য সাধারণত যেরকমের আলামত থাকে শ্রমিক মামুনের শরিরেও তেমনি আলামত পাওয়াগেছে তবে গার্মেন্ট এর ফ্লোরে কোন প্রকার সিসিটিভি ফুটেজ আছে কি না তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ ও ময়নাতদন্তের রির্পোট হাতে পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে আওয়ার নিউজকে জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা মহসিনুল কাদির।

এদিকে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের কারখানা কতৃপক্ষ আজ সাধারণ ছুটি ঘোষনা করেছে।এবং কারখানাটির সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।