মেইন ম্যেনু

আসলাম চৌধুরীর ১০ দিনের রিমান্ড চাইবে ডিবি

বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীকে আদালতে ওঠানো হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হতে পারে। একই সঙ্গে তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদেরও আবেদন করা হবে বলে জানা গেছে।

রোববার সন্ধ্যার দিকে রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকা থেকে আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেন গোয়েন্দারা।

ডিএমপির উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার জানান, নিয়ম অনুযায়ী আজ সোমবার আসলাম চৌধুরীকে আদালতে হাজির করা হতে পারে। অবশ্য তার আগে বিএনপির এ নেতার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট তথ্য-প্রমাণ আদালতে উপস্থাপন করা হবে।

ডিবি সূত্রে জানা গেছে, আসলামকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। একই সঙ্গে তিনি যে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড করেছেন, তার প্রমাণাদি আছে। এ কারণে তাকে রাষ্ট্রদ্রোহিতা মামলায়ও গ্রেপ্তার দেখানো হতে পারে। অবশ্য সে ক্ষেত্রে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন নেবেন তদন্তসংশ্লিষ্টরা। যেকোনো মামলায় রিমান্ড আবেদন করা হবে। সে ক্ষেত্রে আসলামের ১০ দিন রিমান্ডও হতে পারে।

অভিযোগ আছে, বিএনপির এই যুগ্ম মহাসচিব ভারতে ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের এজেন্টের সঙ্গে গোপনে বৈঠক করেন। ওই বৈঠকের মূল আলোচনায় ছিল কীভাবে সরকারকে হটানো যায়। পরে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কাছে ওই বৈঠকের ছবি এবং তথ্য আসে।

একসময় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা আসলাম সাবেক বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় রাতারাতি আঙুল ফুলে কলাগাছ বনে যান। ওই সময় তিনি বিভিন্ন সরকারি কারখানা স্বল্পমূল্যে কেনেন এবং এ জন্য রাষ্ট্রীয় ব্যাংক থেকে ঋণ নেন।



« (পূর্বের সংবাদ)