মেইন ম্যেনু

আহত ফিলিস্তিনি যুবকের মাথায় গুলি করেছিলেন ইসরায়েলি এই সেনা

আহত অবস্থায় মাটিতে পড়ে থাকা এক ফিলিস্তিনিকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় এক ইসরায়েলি সেনাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে সামরিক আদালতে। ‘হামলাকারী’ আহত ওই ফিলিস্তিনি যুবক আবদুল ফাতাহ আল-শরিফ রাস্তায় পড়ে ছিলেন। তাঁর কাছে থাকা ছুরিও সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। তবু তাঁকে ঠান্ডা মাথায় গুলি করে হত্যা করেন ইসরায়েলি সার্জেন্ট এলোর আজারিয়া।

গতকাল বুধবার দেওয়া রায়ে তিন সদস্যের সামরিক আদালত বলেন, সার্জেন্ট আজারিয়ার এ ধরনের কাজ ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর মূল্যবোধের বিরুদ্ধাচরণ। পরবর্তী কোনো তারিখে আজারিয়ার সাজা ঘোষণা করা হবে।

গত মার্চে অধিকৃত পশ্চিম তীরে হেবরনে এ ঘটনা ঘটে। পুরো ঘটনার ভিডিও চিত্র তখন প্রকাশিত হওয়ার পর ইসরায়েলসহ বিশ্বজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। এলোর আজারিয়ার শাস্তি দাবি করেন ইসরায়েলের নাগরিকদের একাংশ। অন্যরা বলেন, হামলাকারীকে মারা ঠিক আছে। এই মামলাটি নিয়ে ইসরায়েলি জনমত মারাত্মকভাবে বিভক্ত ছিল এবং তীব্র বিতর্ক চলছিল।

হত্যার একটু আগে আবদুল ফাতাহ এবং তাঁর আরেক সহযোগী মিলে এক ইসরায়েলি সৈনিককে ছুরিকাঘাত করেছিলেন। এর পরপরই অন্য সৈনিকেরা তাঁকে ধরে ফেলেন। আর সহযোগীতে গুলি করে হত্যা করা হয়। আহত অবস্থায় যখন তিনি মাটিতে পড়ে ছিলেন এবং নড়তে পারছিলেন না, তখন সার্জেন্ট আজারিয়া তাঁর মাথায় গুলি করেন। পুরো ঘটনা গোপনে ভিডিও করেন আরেক ফিলিস্তিনি।