মেইন ম্যেনু

ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে ভ্যাট আরোপের রায় আপিলে স্থগিত

দেশের ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলের শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি’র ওপর ৭ দশমিক ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করাকে অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায় স্থগিত করে আদেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ২৯ জানুয়ারি তারিখ ঠিক করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার সকালে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আজ আদালতের শুনানিতে রিটের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন এম আমীন উদ্দিন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এর আগে, গত ১২ ডিসেম্বর ইংলিশ মিডিয়ামে ভ্যাটের সংক্রান্ত বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে বিচারপতি জুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি মজিবুর রহমান মিয়ার হাইকোর্ট বেঞ্চ রায় এ ঘোষণা করেন। ওই সময়ে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ড. শাহদীন মালিক।

পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এই রায়ের ফলে জানুয়ারি থেকে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের শিক্ষার্থীদের ভ্যাট দিতে হবে না।

এর আগে গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি’র ওপর ৭ দশমিক ভ্যাট আরোপ কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল করেন হাইকোর্ট।

দুই অভিভাবকের করা রিট আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি শামীম হাসনাইন ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের দুই জন শিক্ষার্থীর অভিভাবক ফাইজুল ইসলাম ও সেলিম আজম ভ্যাট প্রদানের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিটটি দায়ের করেন।

রিটে বিবাদী করা হয়েছে, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সচিব, শিক্ষা সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানকে।

রিট আবেদনে বলা হয়, ভ্যাট আরোপের কারণে ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষার সুযোগ সংকুচিত হয়েছে। এছাড়া এটি বৈষম্য মূলকও। কারণ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলোর ওপর সরকার ভ্যাট আরোপ করেছিল তা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। ফলে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোর ওপর ভ্যাট আরোপ ন্যায় সংগত নয়।

জানা যায়, ২০১২ সালে সরকার ৪ দশমিক ৫ শতাংশ করারোপ করে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের টিউশনের ওপর। পরে তা বাড়িয়ে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ করা হয়।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভ্যাট প্রত্যাহারের সিন্ধান্তের পর থেকে কয়েকটি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকেরা ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আসছেন।