মেইন ম্যেনু

ইউপি নির্বাচনের ফলাফল পরিবর্তনের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে সংবাদ সম্মেলন

শরিফুল ইসলাম, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি॥ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা প্রকৌশলী ও রিটার্র্নিং অফিসার সরকারি দলের চাপের মুখে ২০ নং রুহিয়া পশ্চিম ইউনিয়নের নির্বাচিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর ফলাফল পাল্টে দিয়ে পরাজিত প্রার্থীকে বিজয়ী ঘোষনা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মোস্তফা কামাল । তিনি আজ সোমবার দুপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো জানান,গত শনিবার ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ২০ নং রুহিয়া পশ্চিম ইউনিয়নে মোটামুটি শান্তিপূর্ন ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট গ্রহন শেষ হয়। ৯টি কেন্দ্রের ফলাফলে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মোস্তফা কামাল ৩৫২ ভোটের ব্যবধানে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।তিনি মোট ভোট পান ৪ হাজার ৮১৭ ভোট এবং নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অনিল কুমার সেন পান ৪ হাজার ৪৬৫ ভোট।

কিন্তু রাত ৯টায় জেলা আওয়ামীলীগের কয়েকজন নেতা ৯নং মন্ডলাদাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসারকে নিয়ে এসে ঘষামাজা করা ফলাফল রিটার্নিং কর্মকর্তার নিকট জমা করে।বিষয়টি টের পেয়ে জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র মির্জা ফয়সাল আমীনের নেতৃত্বে প্রার্থী সহ বিএনপি নেতৃবৃন্দ রিটার্নিং কর্মকর্তাকে দাখিলকৃত রেজাল্টসীট বিষয়ে প্রতিবাদ জানালে তাদের রিটানিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে বের কওে দেয়।পরে মন্ডলাদাম কেন্দ্রের প্রাপ্ত ফলাফল পরিবর্তন করে পরাজিত নৌকা মার্কার প্রার্থী অনিল কুমার সেনকে বে আইনীভাবে নির্বাচিত ঘোষনা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রার্থীও নির্বাচনী এজেন্ট ও বিএনপি নেতা আনছারুল ইসলাম,জেলা বিএনপি নেতা ওবায়দুল্লাহ মাসুদ,নূর করিম,সদর উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক আব্দুল হামিদ,মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত প্রাথীৃ আশরাফুল ইসলাম,বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার পাড়িয়া ইউপির প্রাথীৃ জিল্লুর রহমান,বড়বাড়ি ইউপির প্রার্থী টিএম মাহবুবুর রহমান,চাড়োল ইউপির প্রাথীৃ হাবিবুল্লাহ বাবু ,জেলা যুবদলের আহবায়ক চৌধুরী মহেবুল্লাহ আবু নূর প্রমুখ।

নেতৃবৃন্দ চতুর্থধাপে অনুষ্ঠিত বেশিরভাগ ইউনিয়নের নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন দাবি করে পুনঃ নির্বাচনের দাবি জানান।