মেইন ম্যেনু

ইউপি নির্বাচন : কঠোর শাস্তি পাচ্ছেন সাতক্ষীরার রিটার্নিং কর্মকর্তা

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ফল পাল্টে দেয়ার অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় কঠোর শাস্তি পাচ্ছেন সাতক্ষীরার রিটার্নিং কর্মকর্তা সনজয় বিশ্বাস। তিনি উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা। সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার রমজান নগর ইউনিয়নের নির্বাচনে বিতর্কিতভাবে এক সতন্ত্র প্রার্থীকে (আ.লীগের বিদ্রোহী) জয়ী ঘোষণা করায় তাকে শাস্তি পেতে হচ্ছে।

জানা যায়, গত ২২ মার্চ (মঙ্গলবার) ইউপি নির্বাচনে রমজান নগর ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ শেষে রিটার্নিং কর্মকর্তা (উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা) সনজয় বিশ্বাস প্রথমে বিএনপির প্রার্থী আকবর আলীকে ১৮ ভোটে বিজয়ী ঘোষণা করেন। কয়েক ঘণ্টা পর রাতে আবার তিনিই বিএনপির প্রার্থীকে বাদ দিয়ে সতন্ত্র প্রার্থী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) শেখ আল মামুনকে ৩৩ ভোটে বিজয়ী ঘোষণা করেন। এ জন্য স্থানীয় রমজান নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ফলাফল বিবরণীতে ফ্লুইড দিয়ে ঘষামাজা করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে বিএনপির প্রার্থী নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করলে কমিশন শুনানির আয়োজন করে। সোমবার কমিশন সচিবালয়ের যুগ্ম সচিব জেসমিন টুলী সনজয় বিশ্বাস, কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মুন্সী আবদুর রব ও বিএনপির প্রার্থী আকবর আলীর শুনানি গ্রহণ করেন। শুনানিতে রিটার্নিং কর্মকর্তার অনৈতিক কাজের প্রমান পাওয়া যায়।

তবে শুনানিতে রিটার্নিং কর্মকর্তা দাবি করেন, বিজয়ী প্রার্থীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিত তিনি দ্বিতীয়বার গণনা করলে ফল বদলে যায়। অন্যদিকে, বিএনপির প্রার্থীর অভিযোগ করেন, দ্বিতীয়বার গণনার সময় তারা উপস্থিত ছিলেন না। এছাড়া কর্মকর্তার দাবি ও ফলাফল বিবরণীতে ঘষামাজার বিষয়ে তার ব্যাখ্যা গ্রহণযোগ্য মনে করেনি ইসি।

এই বিষয়ে জেসমিন টুলী বলেন, এ ধরনের কাজ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে অবশ্যই কঠোর শাস্তি দেয়া হবে। তবে শাস্তি নির্ধারন করবে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্যান্য কমিশনাররা।