মেইন ম্যেনু

ইউরিন ইনফেকশনের নতুন এই কারণটি আপনি জানেন কি?

ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন (UTI) বা ইউরিন ইনফেকশনের কথা সবাই জানেন, বিশেষ করে নারীরা। এর উপসর্গগুলোও আমাদের অজানা নয়। অন্যান্য সব ইনফেকশনের চাইতে এর প্রকোপটাই বেশি দেখা যায়। অনেকে ইউরিন ইনফেকশনে আক্রান্ত হলে নিজে নিজেই ওষুধ খেয়ে থাকেন কিন্তু সম্প্রতি এই সাধারণ সমস্যাটির পেছনেই একটি নতুন কারণ দেখা যাচ্ছে, যার কারণে ইউরিন ইনফেকশনের ব্যাপারে ডাক্তার দেখানোটা জরুরী।

UTI কখন হয়? যখন আমাদের অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া ইউরিনারি ট্র্যাক্টে ঢুকে পড়ে। আর গবেষকেরা বলেন, এই ব্যাকটেরিয়া আসে আমাদের অন্ত্রের E. coli ব্যাকটেরিয়ার কয়েকটি ধরণ থেকে। এগুলো আমাদের পেটে কোনো গোলমাল তৈরি না করলেও ইউরিন ইনফেকশনের পেছনে এদের ভূমিকা আছে। এই ব্যাকটেরিয়ার কিছু ধরণ আমাশার জন্য দায়ী। কিন্তু যেগুলো ইউরিন ইনফেকশন তৈরি করে, সেগুলো খাবারে থাকলেও আমরা বুঝতে পারি না। কিন্তু এইসব খাবারগুলোই UTI এর মূল কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে, দেখেন জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির গবেষকেরা। মূলত মাংসের মাঝে তারা এই ব্যাকটেরিয়া পান। কিন্তু এটা চিন্তার বিষয় নয়। চিন্তার মিশয় হলো, এসব ব্যাকটেরিয়া ইতোমধ্যেই UTI সারাতে ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিকে অভ্যস্ত হয়ে গেছে, এতে তাদের তেমন ক্ষতি হয় না। এ কারণেUTI হলে আপনার জেনে নেওয়া দরকার আপনাকে আসলে কোন ব্যাকটেরিয়া আক্রান্ত করেছে এবং এই ব্যাকটেরিয়াকে ঘায়েল করতে কী অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করবে সেটা ডাক্তারের থেকে জেনে নেওয়া দরকার।

শুধু অ্যান্টিবায়োটিকই নয়, কিছু ঘরোয়া উপায়েও আপনি UTI এর সম্ভাবনা কম রাখতে পারেন এবং কমিয়ে আনতে পারেন এর কষ্ট।
টাটকা এবং বিশুদ্ধ ক্র্যানবেরি জুস

অনেকেই জানেন যে ক্র্যানবেরি জুস আমাদের ইউরিন ইনফেকশনের ঝুঁকি কমায়। কিন্তু এর জন্য ফ্রেশ ক্র্যানবেরি জুস পান করাটাই বেশি ভালো। ক্র্যানবেরির প্যাকেটজাত জুস এবং সাপ্লিমেন্টে UTI আসলে কমে কিনা তা নিয়ে রয়েছে বিতর্ক। তবে এটা ঠিক যে ক্র্যানবেরিতে থাকা এক ধরণের সক্রিয় উপাদান আসলেই কাজ করে। এবং আপনি UTI এর সমস্যায় ভুগে থাকলে ক্র্যানবেরি জুস পান করে দেখতে পারেন, উপকার হতে পারে।
ম্যাপল সিরাপ

চিনি এবং পানি যোগ করা না হলে ম্যাপল সিরাপ UTI কমাতে বড় ভূমিকা রাখতে পারে। এটা অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতাকে বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।
ক্ষারীয় করে তুলুন আপনার মুত্র

এ সময়ে অনেকেই ভাবেন ভিটামিন সি খাওয়া উচিৎ, কারণ তা মুত্রকে অম্লীয় করে ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলবে। আসলে কিন্তু আমাদের মুত্রের পিএইচ লেভেল না অম্লীয়, না ক্ষারীয় অর্থাৎ নিরপেক্ষ করে তুলতে পারলেই ব্যাকটেরিয়া ছড়ানো বন্ধ হবে। রঙ্গিন ফলমূল এক্ষেত্রে আপনার উপকারে আসতে পারে।

এছাড়াও উপসর্গ দেখা যাবার সাথে সাথে বেশি করে পানি পান করুন। এতে বারবার মুত্রত্যাগ করা হবে এবং শরীর থেকে ব্যাকটেরিয়া বের হয়ে যেতে থাকবে।