মেইন ম্যেনু

ইউরোপে স্থায়ী আশ্রয়ের জন্য শতাধিক অভিবাসীর ইসলাম ত্যাগ খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণ

ইউরোপে স্থায়ী আশ্রয় লাভ করতে শতাধিক মধ্যপ্রাচ্য অভিবাসী ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে খ্রিষ্টান হয়েছেন বলে খবর প্রকাশ করেছে ফক্স নিউজ। এদের বেশিরভাগই ইরান ও আফগানিস্তানের নাগরিক। মোহাম্মদ আলী জনবি ধর্মান্তর করা তেমনই একজন। এই ইরানি অভিবাসী জার্মানিতে গিয়ে পরিবার সমেত ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে খ্রিষ্টান হয়েছেন।

বার্লিনের একটি চার্চে স্ত্রী ও দুই সন্তানসহ শপথের মাধ্যমে তিনি খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণ করেন। খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণের পর তাঁর নতুন নাম দেয়া হয় মার্টিন জানবি।

ইরানে কার্পেন্টার ব্যবসার সাথে যুক্ত জানবি পরিবারকে নিয়ে প্রায় ৫ মাস আগে জার্মানি পৌঁছান। ইসলাম ত্যাগ করা অস্বস্তিকর হলেও খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণ করলে জার্মানিতে স্থায়ীভাবে বসবাস করার সুযোগ কিছুটা বেড়ে যাবে এই আশা করেন তারা।

এর ব্যখ্যায় বলা হয়, জার্মানিতে যদিও ইসলাম ধর্মের লোকেরা শান্তিতে বাস করতে পারেন , চ্যান্সেলর এঙ্গেলা মার্কেলও বিষয়টি পরিষ্কার করেছেন। অপরদিকে ইরান ও আফগানিস্তানে ইসলাম ত্যাগ করার শাস্তি হচ্ছে মৃত্যুদণ্ড। কাজেই দেশে ফিরলে মৃতদণ্ড পেতে পারেন এমন কাউকে মানবাধিকার বিষয়ে সর্বোচ্চ সজাগ জার্মানি সেসব দেশে ফেরত পাঠাবে না। সেক্ষেত্রে তাদের স্থায়ী আশ্রয় নিশ্চিত হবে।

অনেকে তাদের ধর্মান্তর বিশ্বাসের কারণে করছেন বলে সংবাদ মাধ্যমে উল্লেখ্য করলেও ইরানি এক তরুণী রাখঢাক না রেখেই বললেন – স্থায়ী আশ্রয়ের প্রত্যাশাতেই এমনটি করছেন তারা।

জার্মানির ফেডারেল অফিস পরিষ্কার করেই বলেছে- স্থায়ী আশ্রয়ের আবেদনে ধর্ম কখনই মুখ্য হবেনা। কিন্তু জানবি ও তাঁর স্ত্রী আফসানা বলেন “আমরা এখন খুব খুশি, এখন আমাদের সন্তানদের সুন্দর ভবিষ্যৎ আশা করতেই পারি। তারা জার্মানি সুশিক্ষার সুযোগ পাবে”।

সূত্র: ফক্স নিউজ