মেইন ম্যেনু

ইতিহাস গড়ে বিশ্বকাপের সেমিতে ইংল্যান্ডের মেয়েরা

আগের দুই আসরেই কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছিল তারা। ২০০৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ৩-০ গোলে হেরে এবং ২০১১ সালে ফ্রান্সের বিপক্ষে টাইব্রেকারে হেরে। তবে এবার আর অতীতের পুনরাবৃত্তি ঘটায়নি ইংল্যান্ডের মেয়েরা। কানাডাকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো ফিফা নারী বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড।

রোববার সপ্তম আসরের শেষ কোয়ার্টার ফাইনালে স্বাগতিক কানাডার বিপক্ষে ২-১ গোলে জিতেছে ইংল্যান্ডের মেয়েরা। দলের হয়ে একটি করে গোল করেন জোদাই টেইলর ও লাকি ব্রনজি। কানাডার একমাত্র গোলটি করেন সিনক্লাইর।

এদিন ম্যাচের ১১ থেকে ১৪, ৪ মিনিটের ব্যবধানে ২-০ গোলের লিড নেয় ইংল্যান্ড। প্রথমে দলকে এগিয়ে দেন টেইলর। এরপর সতীর্থ ফারা উইলিয়ামসের ফ্রি-কিক থেকে হেডে স্কোরলাইন ২-০ করেন ব্রনজি।

প্রথমার্ধের নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হওয়ার ৩ মিনিট আগে কানাডার একটি গোল শোধ করেন সিনক্লাইর। এরপর দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলের কেউই আর গোল করতে পারেনি। ফলে ২-১ গোলের জয়ে সেমির টিকিট পায় ইংল্যান্ড।

আগামী বুধবার সেমিফাইনালে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জাপানের বিপক্ষে খেলবে ইংল্যান্ড। শনিবার কোয়ার্টার ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে শেষ চারে ওঠে এশিয়ার পরাশক্তি জাপান।

এর আগে প্রথম দুই দল হিসেবে সেমিফাইনাল জায়গা নিশ্চিত করে জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্র। আগামী মঙ্গলবার প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে নারী বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ দুইবার করে শিরোপা জেতা এই দুদল।