মেইন ম্যেনু

আত্মবিশ্বাসী ইমরুল কায়েস

ইনজুরিতে সৌম‌্য, দলে ইমরুল

শেষ পর্যন্ত আশঙ্কাটাই সত্যি হল। বাম পাঁজরের ইনজুরির কারণে জিম্বাবুয়ে সিরিজে আর খেলা হচ্ছে না সৌম্য সরকারের। তার পরিবর্তে প্রথম দুই ওয়ানডে ম্যাচের জন্য ইমরুল কায়েসকে ১৪ সদস্যের দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে এ সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করেন জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ।

আগামী ৭ নভেম্বর থেকে শুরু হবে ওয়ানডে সিরিজ। এই সিরিজকে সামনে রেখে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে গত বৃহস্পতিবার শুরু হয়েছিল বাংলাদেশ দলের অনুশীলন। দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে সফরে থাকার কারণে প্রথম কয়েকদিনে অনুশীলনে অনুপস্থিত ছিলেন সৌম্য। এমনকি বাংলাদেশে ফিরে গত মঙ্গলবার প্রথমবারে মতো অনুশীনে যোগ ছিলেন এই বাঁ হাাতি ওপেনার; কিন্তু বাম পাঁজরে ব্যথা অনুভব করায় ব্যাটিং অনুশীলন থেকে বিরত ছিলেন সৌম্য।

মঙ্গলবার অনুশীলনের সময় বাম পাঁজরে (সাইট স্ট্রেইন) টান পান ওপেনার সৌম্য। বর্তমানে বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরীর পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। ফলে আসন্ন জিম্বাবুয়ে সিরিজে এ বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানে খেলা নিয়ে দেখা দিয়েছিল শঙ্কা। বৃহস্পতিবার বিকেলে সেই শঙ্কাই সত্যি প্রমাণ করলেন প্রধান নির্বাক ফারুক আহমেদ।

সৌম্য সরকারের বাম পাঁজরের ইনজুরি নিয়ে ফতুল্লা স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘জিম্বাবুয়ে সিরিজটা মিস করতে যাচ্ছেন সৌম্য। ওর (সৌম্য) যে ধরণের ইনজুরি তাতে করে কমপক্ষে দুই থেকে তিন সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকবে হবে। তাই আমরা সৌম্যের পরিবর্তে ইমরুল কায়েসকে দলে অন্তর্ভূকক্ত করেছি।’

আত্মবিশ্বাসী ইমরুল কায়েস

ওয়ানডে বিশ্বকাপের আগে থেকেই বাংলাদেশ দলে জায়গা হারিয়েছিলেন ইমরুল কায়েস। ইচ্ছা ছিল বিশ্বকাপ খেলবেন। প্রথমে ডাক পাননি। পরে এনামুল হক বিজয়ের ইনজুরিতে সুযোগ পান ইমরুল কায়েস।

কিন্তু ব্যাট হাতে আলো ছড়াতে না পরায় আবারো ওয়ানডে দলে ভ্রাত্য হয়ে পড়েন তিনি। তাই বলে তিনি আত্মবিশ্বাস হারাননি। সুযোগের অপেক্ষায় ছিলেন। বৃহস্পতিবার ফতুল্লা স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ে একাদশের বিপক্ষে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচ শেষে এভাবেই নিজের অপেক্ষা করা দিনগুলোর কথা বললেন তিনি। যে ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি করেছেন ইমরুল কায়েস।

ইমরুল

এই হাফসেঞ্চুরি (৫৬) দিয়েই সৌম্যর জায়গায় ডাক পেলেন ইমরুল। ম্যাচ শেষে এই বাঁ-হাতি ওপেনার বলেন, ‘এটা আমার জন্যে বড় একটা সুযোগ। বিশ্বকাপের পর ওয়ানডেতে খেলার কোনো সুযোগ হয়নি। জাতীয় লিগ থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত ভালো একটা অবস্থার মধ্যে আছি। নির্বাচক ও টিম ম্যানেজমেন্টকে ধন্যবাদ। আশা করছি এখান থেকে ভালো কিছু করতে পারব।’

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচের শুরু থেকে এনামুল হক ও ইমরুলের মধ্যে একটি অলিখিত প্রতিযোগিতা চলছিল। ধারণা ছিল হয়তো যে ভালো করবে তাকেই চুড়ান্ত দলে ডাকবেন নির্বাচকরা। এ বিষয়ে ইমরুল বলেন, ‘এনামুলের সঙ্গে তার কোনো লড়াই ছিল না। আর বিশ্বকাপের পর আমি ওয়ানডে দলে নেই। ওডিআইতে উন্নতি করার চেষ্টা করছি। যে সব জায়গায় গ্যাপ ছিল সে সব জায়গায় কাজ করেছি।’

নিজের উন্নতির জন্য কোন কোন জায়গায় কাজ করেছেন জানতে চাইলে এ বাঁহাতি ওপেনার বলেন, ‘বিশ্বকাপ খেলার সময় বাউন্স বলে সমস্যা অনুভব করেছি। এখন ব্যাটিংয়ে কিছু পরিবর্তন এনেছি। টেকনিকে একটু পরিবর্তন এনেছি। তাই এখন একটু স্বাছন্দ্যে ব্যাটিং করতে পারছি। যার কারণে জাতীয় লিগ এবং আজকের প্রস্তুতি ম্যাচগুলোতে সহজেই ব্যাটিং করতে পেরেছি।’